Pre-loader logo

এসআইবিএল দেশের অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা রাখবে

এসআইবিএল দেশের অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা রাখবে

বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান বলেছেন, ‘এসআইবিএল দেশের অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা রাখবে। একটি ক্রান্তিকালে আমি শেয়ারহোল্ডারদের অনুরোধে এই ব্যাংকের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। তিন বছরে আমাদের পর্ষদ এসআইবিএলকে দেশের অন্যতম একটি ভালো ব্যাংক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছি।’
গতকাল রাজধানীর কুড়িলে ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ও বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান কেক কেটে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্বোধন করেন। এ সময় এসআইবিএল চেয়ারম্যান আনোয়ারুল আজিম আরিফ, নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান বেলাল আহমেদ, ভাইস চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ওসমান আলী উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া ইসলামী ব্যাংকের চেয়ারম্যান আরাস্তু খান, রূপালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আতাউর রহমান প্রধান, আল আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাবিবুর রহমানসহ ব্যবসায়ী, উদ্যোক্তা, ব্যাংকার, প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা ও গ্রাহকরা অংশ নেন। সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের (এসআইবিএল) ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এই গ্রাহক সমাবেশের আয়োজন করা হয়। শুভেচ্ছা বক্তব্যে আহমেদ আকবর সোবহান বলেন, ‘আজ আমি আনন্দিত যে, এই ব্যাংকটি এমন একটি পরিচালনা পর্ষদের কাছে গেছে যারা ইসলামী ব্যাংকিংয়ের ক্ষেত্রে স্বনামধন্য ও প্রতিশ্রুতিশীল। ব্যাংক খাতে মহাবিপর্যয়ের মধ্যেও এসআইবিএল তার শক্তিশালী পর্ষদ ও দক্ষ কর্মীদের ভূমিকার কারণে দেশের অন্যতম ব্যাংক হিসেবে টিকে রয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি একাধিক ব্যাংকের গ্রাহক। এসআইবিএলেরও একজন গ্রাহক। ইসলামী ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ব্যবসা পরিচালনা করলে সেই ব্যবসা কখনো ব্যর্থ হয় না। ইসলামী ব্যাংকিং সুদ নেয় না। তাই সব সময় একটি আশীর্বাদ থাকে। আমরাও সুনামের সঙ্গে ব্যবসা করছি।’ বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমি আশা করি, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে বর্তমান পর্ষদ এসআইবিএলকে দেশের ব্যাংক খাতের শীর্ষে নিয়ে যাবেন। গ্রাহকদের সঙ্গে সর্বাত্মক সহযোগিতার মাধ্যমে ব্যাংক-গ্রাহক সম্পর্ক বৃদ্ধি পাবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘পরিচালকদের মনে রাখতে হবে, মাত্র ১০ কোটি টাকা দিয়ে ব্যাংকের মালিক হয়েছেন। আর হাজার হাজার কোটি টাকা গ্রাহকদের। গ্রাহকদের টাকা নিজের মনে করলে চলবে না। বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হবে। এর পরে উন্নত দেশে পরিণত হবে। আশা করি, দেশের অর্থনীতিতে বিশাল ভূমিকা রাখবে এই ব্যাংক।’

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.