Pre-loader logo

চ্যাম্পিয়ন হলেন থাইল্যান্ডের জাজ রানারআপ বাংলাদেশের সিদ্দিক

চ্যাম্পিয়ন হলেন থাইল্যান্ডের জাজ রানারআপ বাংলাদেশের সিদ্দিক

তৃতীয় বসুন্ধরা বাংলাদেশ ওপেনের শিরোপা জিতেছেন জাজ জানেওয়াতানন্দ। থাইল্যান্ডের ২০ বছর বয়সী এই গলফার প্রথমবারের মতো এশিয়ান ট্যুরের শিরোপা জেতেন। রানারআপ হয়েছেন বাংলাদেশের সিদ্দিকুর রহমান। তৃতীয় হয়েছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তারকা গলফার ডজ কেমার। জাজ পারের চেয়ে মোট ১৭ কম খেলেছেন। গতকাল দুর্দান্ত খেলেও জাজকে টপকে যেতে পারেননি দেশসেরা গলফার সিদ্দিকুর। তিনি শেষ করেছেন ১৩ আন্ডার পারে।
গতকাল কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবে চ্যাম্পিয়ন জাজের হাতে ট্রফি তুলে দেন প্রধান অতিথি গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। প্রাইজমানির ৫৪ হাজার ডলারের চেক তুলে দিয়েছেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান। এ ছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এশিয়ান ট্যুরের পরিচালক জিতিসাক ট্যাম্প্রাসার্ট, কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মেজর জেনারেল এ কে এম আবদুল্লাহ হেল বাকী, বসুন্ধরা গ্রুপের উপদেষ্টা লে. কর্নেল আবদুল ওয়াহেদ (অব.) ও অন্য কর্মকর্তারা।
তৃতীয় রাউন্ড শেষে বাংলাদেশের সেরা গলফার সিদ্দিকুর রহমান ছিলেন তৃতীয় স্থানে। গতকাল দুর্দান্ত পারফর্মে দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসেন। বসুন্ধরা গলফে রানারআপ হওয়ায় এশিয়ান ট্যুরের অর্ডার অব মেরিটেও উন্নতি করেছেন সিদ্দিকুর। এখন তার অবস্থান ১২তম। বসুন্ধরা বাংলাদেশ ওপেনের প্রথম আসরে ৩৮তম এবং দ্বিতীয় আসরে ৩৫তম হয়েছিলেন সিদ্দিকুর। এবার রানারআপ হতে পেরে ভীষণ খুশি দেশসেরা গলফার। সিদ্দিকুর বলেন, ‘আমি অনেক খুশি যে, প্রথম দিনটা যদিও ভালো ছিল না কিন্তু পরে আমি ভালোভাবে ফিরে এসেছি। নিজেদের কোর্সে দ্বিতীয় পজিশন, সব মিলিয়ে আমি খুশি।’ চ্যাম্পিয়ন জাজ বলেন, ‘এখানকার গলফ কোর্সটা দারুণ। আমার কাছে আরও ভালো লাগছে এখানে আমি আমার প্রথম বড় শিরোপা জিতলাম। এখানকার কথা আমার অনেক দিন মনে থাকবে।’
গতকাল পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে চার দিনের টুর্নামেন্টের পরিসমাপ্তি ঘটে। বসুন্ধরা গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় তৃতীয়বারের মতো সফলভাবে এশিয়ান ট্যুরের টুর্নামেন্ট শেষ করল গলফ ফেডারেশন। গতকাল প্রধান অতিথির বক্তব্যে বসুন্ধরা গ্রুপকে ধন্যবাদ দিয়ে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘সাফল্যের সঙ্গে শেষ হয়েছে বসুন্ধরা বাংলাদেশ ওপেন। এটা শুধু টুর্নামেন্ট নয়, গলফ ও পর্যটনের ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রেখেছে। বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ১৮ হোলের ১৩টি গলফ কোর্স আছে। বাংলাদেশ সরকার কক্সবাজারে একটি গলফ কোর্স করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’ সফলভাবে টুর্নামেন্টের সমাপ্তি ঘটায় বসুন্ধরাকে অভিবাদন জানিয়েছেন এশিয়ান ট্যুরের পরিচালক জিতিসাক ট্যাম্প্রাসার্টও। তিনি বলেন, ‘এমন একটি সুন্দর টুর্নামেন্টে পৃষ্ঠপোষকতা করার জন্য বসুন্ধরা গ্রুপকে ধন্যবাদ। এ টুর্নামেন্টটি এদেশের গলফের পাশাপাশি পর্যটনেও বড় অবদান রাখবে।’

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.