Pre-loader logo

জিতেই চলেছে শেখ রাসেল

জিতেই চলেছে শেখ রাসেল

ঢাকায় যেন পণ করেই এসেছেন ফিকরু টেফেরা। শেখ রাসেলের প্রতিটি ম্যাচে সূচনা গোল করা চাই তার। ধনূক ভাঙা পণে ইথিওপিয়ান স্ট্রাইকার গতকালও শেখ রাসেলের সূচনা গোল করেন। ফিকরু ও ক্যামেরুন স্ট্রাইকার পল এমিলির ২-১ গোলে জয় পেয়েছে রহমতগঞ্জের বিপক্ষে। স্বাধীনতা কাপে এটা টানা তৃতীয় জয় রাসেলের এবং তিন ম্যাচে দ্বিতীয় হার রহমতগঞ্জের। দিনের প্রথম ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনী ২-১ গোলে হারিয়েছে উত্তর বারিধারাকে।
বৈশাখের প্রচণ্ড গরমে বিপর্যস্ত জীবন। গরমে নাজেহাল মৌসুমের প্রথম টুর্নামেন্ট ‘স্বাধীনতা কাপ’। গরমের তেজে দ্রুত পরিশ্রান্ত হয়ে পড়ে ফুটবলাররা। এমন অবস্থান থেকে ফুটবলারদের পরিত্রাণ দিতে খেলার সময়ে পরিবর্তন এনেছে বাফুফে। দিনের প্রথম খেলা পেছানো হয় এক ঘণ্টা এবং পরের খেলাটি পেছানো হয় ৪৫ মিনিট। গতকাল পরিবর্তিত সময়েই খেলা অনুষ্ঠিত হয়। সময়ের পরিবর্তে হয়তো কিছুটা সুবিধা পেয়েছেন ফুটবলাররা। তাতে অবশ্য খেলার ধারায় কোনো পরিবর্তন আসেনি। টানা দুই ম্যাচ জয়ের আত্মবিশ্বাস নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে পুরনো ঢাকার দল রহমতগঞ্জের ওপর। আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলে প্রথমার্ধেই আদায় করে নেয় দুই গোল। পঞ্চম মিনিটে এগিয়ে যায় শিরোপা প্রত্যাশী শেখ রাসেল। এবারও গোলের সূচনা ইথিওপিয়ান স্ট্রাইকার ফিকরু টেফেরার। বাঁ দিক দিয়ে অধিনায়ক আতিকুর রহমান মিশুর ক্রসে নিখুঁত হেডে দলকে উচ্ছ্বাসে ভাসান ফিকরু (১-০)। টুর্নামেন্টে ইথিওপিয়ান স্ট্রাইকারের এটা ৫ নম্বর গোল। ৪ গোল করে পরের স্থানে শেখ জামালের ওয়েডসেন আনসেলমে। দ্বিতীয় গোলটি আসে দারুণ বোঝাপড়ায়। ১৫ মিনিটে মিশুর বাড়ানো বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বাঁ দিক থেকে ক্রস করেন জাহিদ হোসেন এমিলি। ফাঁকা জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকা পল এমিলি ঠাণ্ডা মাথায় গোলসংখ্যা দ্বিগুণ করেন (২-০)। ওই গোলের পর অবশ্য ঘুরে দাঁড়াতে চেষ্টা করে রহমতগঞ্জ। কিন্তু স্ট্রাইকারদের ফিনিশিংয়ের অভাবে গোল করতে পারেনি।
দু্ই গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় শেখ রাসেল। গোল সংখ্যা বাড়ানোর চেয়ে গোল আগলে রাখায় ব্যস্ত ছিল দলটি। তাই আক্রমণের ধার বাড়িয়ে দেয় রহমতগঞ্জ। তবে গোল পায়নি। এর মধ্যেই ফিকরু অসাধারণ টাচে একটি গোল করেন। কিন্তু রেফারি অফসাইডের বাঁশি বাজান। ফলে গোল সংখ্যা তিনে উন্নীত হয়নি। এভাবেই খেলা যখন শেষের দিকে এগোচ্ছিল। তখনই ৮৫ মিনিটে একটি গোল শোধ করে পুরনো ঢাকার দলটি। ডান প্রান্ত থেকে সোহেলের ক্রসে স্লাইড করে বদলি খেলোয়াড় রাশেক তুর্য ব্যবধান কমান (২-১)। ওই গোলের পর সমতা আনার সুযোগ পেয়েছিল। কিন্তু হয়নি। শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলে ম্যাচ জিতেই মাঠ ছাড়ে শেখ রাসেল।
এ নিয়ে টানা তৃতীয় জয় তুলে নেয় শেখ রাসেল। প্রথম ম্যাচে ২-১ গোলে হারায় আরামবাগকে। দ্বিতীয় ম্যাচে ৩-২ গোলে হারায় টিম বিজেএমসিকে।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.