Pre-loader logo

জ্বলে ওঠার প্রত্যয় শেখ রাসেলের

জ্বলে ওঠার প্রত্যয় শেখ রাসেলের

নবমবারের মতো পেশাদার ফুটবল লিগ মাঠে গড়িয়েছে। কিন্তু পেশাদারিত্ব বলতে যা বোঝায় তা এখনো বাংলাদেশে দেখা যায়নি। এ ক্ষেত্রে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রকে ব্যতিক্রমই বলতে হয়। দেশের শীর্ষ শিল্পপ্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপ দায়িত্ব নেওয়ার পর পুরো পেশাদারিত্ব মেনেই শেখ রাসেল মাঠে নামছে। বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান ক্লাবের চেয়ারম্যান হওয়ার পর শেখ রাসেলের চেহারা আমূল পাল্টে গেছে। যে সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হচ্ছে তাতে ফুটবলপ্রেমীরা শেখ রাসেলকে ইউরোপিয়ান দলের সঙ্গে তুলনা করছেন। ফুটবলাররাও বলছেন শেখ রাসেল তাদের কোনো কিছুই অপূর্ণ রাখছে না। তার পরও ফুটবলে যা জরুরি সেই ট্রফি ঘরে তুলতে পারছে না দেশের আলোচিত দলটি। গতবার ফেডারেশন কাপে সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নেয়। পেশাদার লিগে সুবিধাজনক অবস্থানে থেকে চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি। রানার্স-আপ হয়, এর পরও দেশের ফুটবল ইতিহাসে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করেন শেখ রাসেলের চেয়ারম্যান সায়েম সোবহান। রানার্স-আপ হওয়ার জন্য ফুটবলারদের উৎসাহ দিতে ২৫ লাখ টাকা তুলে দেন; যা বাংলাদেশে কখনো ঘটেনি।
ক্লাবের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নেওয়ার পর সায়েম সোবহান দৃঢ়ভাবে বলেছেন, শেখ রাসেলকে তিনি দেশের ১ নম্বর দল হিসেবে দেখতে চান। দলটি চলতি মৌসুমেও তাই দেশের সেরা খেলোয়াড়দের নিয়ে শক্তিশালী দল গড়ে। প্রচুর অর্থ খরচ করে বিদেশি খেলোয়াড় উড়িয়ে আনা হয়। দলের সাফল্যের জন্য সায়েম সোবহান সবকিছুই করছেন। তবু সমর্থকরা কাঙ্ক্ষিত ফল পাচ্ছেন না। স্বাধীনতা কাপ ও ফেডারেশন কাপে সেমি থেকে বিদায়। চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত পেশাদার লিগেও পারফরম্যান্স সুখকর নয়। টানা দুই ম্যাচে দুর্বল প্রতিপক্ষ উত্তর বারিধারা ও রহমতগঞ্জের কাছে হেরে মূল্যবান ৬ পয়েন্ট নষ্ট করেছে। তবে এই হারের পেছনে রেফারিং নিয়েও বিতর্ক উঠেছে। বিশেষ করে উত্তর বারিধারার বিপক্ষে যে পেনাল্টি গোলে শেখ রাসেল হারে তা কোনোভাবেই জেনুইন ছিল না। আর রহমতগঞ্জের বিপক্ষে আক্রমণে গেলে রেফারি অযথা অফসাইডের বাঁশি বাজিয়েছেন।
যাক, লিগ সবে শুরু। দুই ম্যাচ হারা মানে শিরোপা হাতছাড়া হয়ে যাওয়া নয়। এখনো অনেক ম্যাচ বাকি। ভালোভাবে জ্বলে ওঠার সুযোগ পুরোটাই রয়েছে। লিগে পারফরম্যান্স নিয়ে গতকাল চেয়ারম্যান সায়েম সোবহানের সভাপতিত্বে ক্লাবের এক জরুরি সভা হয়। চেয়ারম্যান দল কেন এমন করছে, তা চিহ্নিত করার নির্দেশ দেন। সোমবার চট্টগ্রাম আবাহনীর বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। এ ম্যাচ জেতার জন্য খেলোয়াড়দের সেইভাবে প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে নামার কথা বলেন। দলে কোনো সমস্যা থাকলে তা জরুরি ভিত্তিতে সমাধানের নির্দেশ দেন পরিচালকদের। সায়েম সোবহান বলেন, শেখ রাসেলকে চ্যাম্পিয়ন হতে হবে। এখন থেকে সেভাবেই খেলতে হবে। বসুন্ধরার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় ক্লাবের ডিরেক্টর ইনচার্জ ইসমত জামিল আকন্দ লাভলু ছাড়াও অন্য পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন। ফুটবল লিগে শেখ রাসেলকে জ্বলে উঠতে হবে। এজন্য চেয়ারম্যান ফুটবলে শক্তিশালী কমিটি গঠন করেছেন। পদাধিকারবলে এ কমিটির চেয়ারম্যান হচ্ছেন সায়েম সোবহান। অন্যরা হলেন— মীর সমীর ভাইস চেয়ারম্যান, আলীমুজ্জামান সদস্যসচিব। সদস্য হলেন— শাহজাহান কবীর, আবুল কাশেম, স ম হাসান জামান, রেজাউল করিম, ওসিউর রহমান, হামিদুল হক শামীম, এস এস জাহাঙ্গীর জাকির হোসেন, শাহ আলম, কাজী কামরুল, খবির হোসেন মিঠু, গোলাম রব্বানী হেলাল, আবু বকর, ইসমত জামিল আকন্দ লাভলু, আবদুল লতিফ ও মাকসুদুর রহমান।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.