Pre-loader logo

জয়ে শুরু শেখ রাসেলের

জয়ে শুরু শেখ রাসেলের

স্বাধীনতা কাপ টুর্নামেন্টে খেলতে পারছেন না মামুনুলসহ আট ফুটবলার। খেলতে না পারলেও কাল মাঠে এসেছিলেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের ভিআইপি বক্সে বসে খেলা দেখেন মামুনুল এবং উপভোগ করেন শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের জয়। ম্যাচ শেষে চট্টগ্রাম আবাহনীর সঙ্গে ফুটবলারদের সঙ্গে মাঠে নেমে আসেন মামুনুল। নেমে বেশ অনেকটা সময় অ্যাথলেটিক্স ট্র্যাকে দাঁড়িয়ে কথা বলেন শেখ রাসেলের ইথিওপিয়ান স্ট্রাইকার ফিকরু জেইদার সঙ্গে। কথা বলতে বলতে ঢাকায় খেলতে আসায় অভিনন্দন জানান এবং উৎসাহিত করেন ইথিওপিয়ার জাতীয় দলের ফুটবলারকে। ইন্ডিয়ান সুপার লিগ (আইএসএল) মাতানো ফিকরু বাংলাদেশের মাটিতে খেলতে নেমে অভিষেকটাকে স্মরণীয় করে রাখেন গোল করে। শেখ রাসেলের ২-১ গোলের জয়ে অবদান রাখেন ইথিওপিয়ান স্ট্রাইকার। ফিকরুর অভিষেকের দিন স্বাধীনতা কাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে শেখ রাসেল হারায় মতিঝিলপাড়ার আরামবাগ ক্রীড়া সংঘকে। শিরোপাপ্রত্যাশী দলটির জয়ের নায়ক দুই বিদেশি পল এমিলি ও ফিকরু।
গত কয়েক মৌসুম ধরে বিগ বাজেটের দল গড়ছে শেখ রাসেল। গত মৌসুমে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা জিততে পারেনি অল্পের জন্য। এবার সেই বন্ধ্যত্ব ঘুচাতে জাতীয় দলের বর্তমান ও সাবেক এবং একাধিক ভালো মানের বিদশি ফুটবলার নিয়ে দল গঠন করে। এই দল নিয়ে এবার মৌসুমের সবগুলো শিরোপা জেতার প্রত্যাশা দলটির। সেই স্বপ্ন নিয়েই কাল মৌসুমের প্রথম টুর্নামেন্ট স্বাধীনতা কাপ খেলতে নামে এবং জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে। জয়ে শুরু করলেও শুরুতেই হোঁচট খেতে যাচ্ছিল দলটি। প্রথমে গোল দিয়ে শেখ রাসেলকে স্তব্ধ করে দেয় আরামবাগ। সাইদুজ্জামান পলাশ থু্র বাড়ান ফাঁকায় দাঁড়ানো নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকার কেস্টর অ্যাকনকে। অ্যাকন তাড়াহুড়া না করে মাথা ঠাণ্ডা রেখে শেখ রাসেলের গোলরক্ষক রাসেল মাহমুদকে বোকা বানিয়ে এগিয়ে নেন আরামবাগকে (১-০)। ওই গোলের পর খুব বেশি সময় আধিপত্য ধরে রাখতে পারেনি আরামবাগ। ইন্ডিয়ান সুপার লিগ মাতানো ফিকরু সমতা ফেরান। গোল করে আস্থাভাজন হয়ে ওঠেন কোচ মারুফুলের (১-১)। শুরুতেই দুই দল দুই গোল করে খেলাকে গতিশীল করে তোলে। আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে খেলেও গোলের দেখা পায়নি। সমতায় থেকেই প্রথমার্ধ শেষ হয়। দ্বিতীয়ার্ধে দুই দলই বেশ কয়েকটি পরিবর্তন নিয়ে খেলতে নামে। দুই দলই নতুন দমে আক্রমণাত্মক খেলা খেলতে থাকে। কিন্তু গোলের দেখা পাচ্ছিল না। বরং খেলা যখন ধীরলয়ে শেষের দিকে এগোচ্ছিল, ঠিক তখনই সবাইকে চমকে অসাধারণ দক্ষতায় গোল করেন শেখ রাসেলের ক্যামেরুনিয়ান স্ট্রাইকার পল এমিলি। মধ্য মাঠ থেকে অরুপ বৈদ্যের ভাসানো বলে হেড করেন পল এমিলি। বলটি আরামবাগের গোলরক্ষক মিতুল হাসানকে বোকা বানিয়ে দ্বিতীয় পোস্ট দিয়ে জায়গা নেয় গোলবারে (২-১)। ওই গোলের পর একটু রক্ষণাত্মক মেজাজে খেলতে থাকে শেখ রাসেল। তাতে আক্রমণের ধার বাড়িয়ে দেয় মতিঝিল পাড়ার দলটি। কিন্তু কাজের কাজ করতে না পেরে শেষ পর্যন্ত হার নিয়ে মাঠ ছাড়ে দলটি। বিপরীতে মৌসুমের প্রথম ম্যাচে জয়ের হাসি হেসে মাঠ ছাড়েন মারুফের শিষ্যরা। ইন্ডিয়ান সুপার লিগ মাতানো ফিকরু কাল গোল করে অভিষেককে স্মরণীয় করে রাখেন। ম্যাচ শেষে মাঠ ছাড়ার আগ মুহূর্তে শুধু বলেন, ‘ঢাকায় এসেছি শেখ রাসেলকে চ্যাম্পিয়ন করাতে। চ্যাম্পিয়ন করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টাটাই থাকবে।’
পুরো পয়েন্ট পেল চট্টগ্রাম আবাহনী
সন্ধ্যায় টুর্নামেন্টে দ্বিতীয় ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনী পুরো ৩ পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে। মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া সংস্থাকে তারা ২-০ গোলে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে মরক্কোর ফুটবলার তারিক আল জানাবি গোল করে আবাহনীকে এগিয়ে রাখেন। ৭৩ মিনিটে গোল করে দলের জয় নিশ্চিত করেন নোয়েল।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.