Pre-loader logo

দুই অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়বে বসুন্ধরা গ্রুপ

দুই অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়বে বসুন্ধরা গ্রুপ

দুটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার লাইসেন্স পেল দেশের বৃহৎ শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। রাজধানীর দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে এ দুটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার কাজ ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। ‘বসুন্ধরা বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল’ ও ‘ইস্ট ওয়েস্ট বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল’ নামের এ দুটি জোনে ছোট ও মাঝারি শিল্প কারখানা স্থাপন করা হবে। আর এতে ৪০ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে বলে জানানো হয়েছে।
গতকাল বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) কার্যালয়ে বসুন্ধরা গ্রুপকে প্রি-কোয়ালিফিকেশন (প্রাক-যোগ্যতা) সনদপত্র তুলে দেওয়া হয়েছে। এজন্য বসুন্ধরা গ্রুপ ও বেজার মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। লাইসেন্স প্রদান ও চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী ও বসুন্ধরা গ্রুপ চেয়ারম্যানের প্রধান উপদেষ্টা মেজর জেনারেল মাহবুব হায়দার খান (অব.) ও গ্রুপটির প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা (সিওও) মো. ফখরুদ্দিন। এ ছাড়া বেজার নির্বাহী সদস্য ড. মো. এমদাদুল হক, মো. আবদুস সামাদ, হরিপ্রসাদ পালসহ বসুন্ধরা গ্রুপের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন। পবন চৌধুরী বলেন, বেসরকারি খাতে দ্রুত শিল্পায়ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে বসুন্ধরা গ্রুপ কাজ করে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় কোম্পানিটিকে দুটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। অনুষ্ঠানে বসুন্ধরা গ্রুপের সিওও মো. ফখরুদ্দিন বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপ দেশের শিল্পায়ন ও কর্মসংস্থানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। তারই ধারাবাহিকতায় বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগ করতে যাচ্ছে; যার মধ্য দিয়ে অন্তত ৪০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। তিনি বলেন, বসুন্ধরা স্পেশাল ইকোনমিক জোন মূলত পেট্রোলিয়াম অয়েল রিফাইনারি করার জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে। ইস্টার্ন রিফাইনারি নামে দেশে সরকার পরিচালিত একটিমাত্র প্রতিষ্ঠান রয়েছে। সময়ের ব্যবধানে এটি অনেকটাই উৎপাদনক্ষমতা হারিয়েছে। এসব ভেবে বসুন্ধরা গ্রুপ মনে করে, এ দেশে রিফাইনারি সেক্টরে কাজ করার সুযোগ রয়েছে। সেজন্য বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান ও তার পুত্র গ্রুপটির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের উদ্যোগে বসুন্ধরা অয়েল অ্যান্ড গ্যাস কোম্পানি সেখানে মূল বিনিয়োগ করবে। দ্রুততম সময়ের মধ্যে কাজ শেষ হবে। ডেভেলপমেন্ট শেষে নিজস্ব ইনভেস্টমেন্টের পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগকারী এগিয়ে এলে তাদেরও স্বাগত জানানো হবে বলে জানান তিনি।
মেজর জেনারেল মো. মাহবুব হায়দার খান (অব.) বলেন, এ দুটি জোনে পেট্রোলিয়াম অয়েল রিফাইনারি, স্টিল অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, শিপ বিল্ডিং, সিলিন্ডার ম্যানুফ্যাকচারিং (এলপিজি), এলপিজি বোটলিন প্লান্ট, ফুড অ্যান্ড বেভারেজ, মাল্টি ফুড প্রোডাক্টস— এ ধরনের ভারী ও মাঝারি বেশ কিছু শিল্প গড়ে তোলা হবে। বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের ১০০টি ইকোনমিক জোনের মধ্যে ৫০টি হবে বেসরকারি খাতে। সে ক্ষেত্রে বসুন্ধরা গ্রুপের মতো অন্তত ২০টি বড় কোম্পানি বিনিয়োগে এগিয়ে এসেছে।’ তিনি বলেন, ব্যাপকহারে কর্মসংস্থান সৃষ্টি, রপ্তানি আয় বৃদ্ধি ও শিল্পায়নের জন্য এসব অর্থনৈতিক অঞ্চল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.