Pre-loader logo

দুস্থ পরিবারে বসুন্ধরা গ্রুপের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

দুস্থ পরিবারে বসুন্ধরা গ্রুপের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

করোনা সংকট মোকাবেলায় দুস্থ ও অসহায় মানুষের জন্য খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে দেশের শীর্ষ শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) চারটি ওয়ার্ডের কাউন্সিলরদের হাতে এই খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।
জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে চারটি ওয়ার্ডের এক হাজার ৭০০ পরিবারের জন্য কাউন্সিলরদের কাছে এক হাজার ৭০০ প্যাকেট দেওয়া হয়। প্রতিটি প্যাকেটে ১০ কেজি চাল, দুই কেজি করে মসুর ডাল, পেঁয়াজ ও আলু, এক লিটার সয়াবিন তেল এবং আধাকেজি করে রসুন ও আদা রয়েছে। ডিএনসিসির ১৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. ইসহাক মিয়া, ১৮ নম্বরের কাউন্সিলর জাকির হোসেন বাবুল, ৩৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শফিকুল ইসলাম বাসেক এবং ৪৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাসুদুর রহমান দেওয়ান উপস্থিত থেকে এই খাদ্যসামগ্রী গ্রহণ করেন। ওয়ার্ড অনুযায়ী তালিকা করে দরিদ্র ও অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি খাদ্যসামগ্রী পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন কাউন্সিলররা।
বসুন্ধরা গ্রুপের জ্যেষ্ঠ নির্বাহী পরিচালক এবং হিসাবরক্ষণ ও অর্থ বিভাগের প্রধান ইমরুল কায়েস কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান মহোদয় এক হাজার ৭০০ পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী দিয়েছেন। পর্যায়ক্রমে আরো সহযোহিতা করা হবে। কাউন্সিলররা নিজ নিজ ওয়ার্ডে এসব পণ্য বিতরণ করবেন।’
এদিকে গরিব ও অসহায় মানুষের জন্য খাদ্যসামগ্রী দেওয়ায় বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন কাউন্সিলররা। বৈশ্বিক এই মহামারিতে বসুন্ধরা গ্রুপের মতো অন্য ধনাঢ্য প্রতিষ্ঠান দরিদ্র ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ালে সংকট মোকাবেলা আরো সহজ হবে বলেও মনে করেন তাঁরা। এদিকে খাবার হাতে পেয়ে বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে সাহায্য পাওয়া লোকজন। গতকাল কালাচাঁদপুর এলাকার বাসিন্দা সালমা আক্তার বলেন, ‘কয়েক দিন ধরে বাইরে যেতে পারছি না। স্বামীর কাজও বন্ধ। এই সহযোগিতা পেয়ে বেশ কিছুদিন সন্তানদের নিয়ে ভালো থাকতে পারব।’
১৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. ইসহাক মিয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বসুন্ধরা গ্রুপ সব সময় দরিদ্র ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ায়। এবারও খাদ্যসামগ্রী দিয়েছে। আমরা তালিকা করে বাড়ি বাড়ি এসব খাবার পৌঁছে দেব। আমি বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।’
১৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর জাকির হোসেন বাবুল বলেন, ‘এটা অনেক বড় সহযোগিতা। প্রাথমিকভাবে আমার ওয়ার্ডে ৪০০ প্যাকেট এসেছে। পর্যায়ক্রমে আরো সহযোগিতা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান। ওয়ার্ডবাসীর পাশে থাকার জন্য আমি বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যানের প্রতি কৃতজ্ঞ।’
উল্লেখ্য, এর আগে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ১০ কোটি টাকার চেক দিয়েছেন বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় পাঁচ হাজার শয্যার করোনা হাসপাতাল তৈরির প্রস্তাব দিয়েছেন বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান। শিগগিরই দেশের সবচেয়ে বড় এই করোনা হাসপাতালের কাজ শুরু হবে।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.