Pre-loader logo

দেশ ও মানুষের কল্যাণই মূলমন্ত্র বসুন্ধরা গ্রুপের

দেশ ও মানুষের কল্যাণই মূলমন্ত্র বসুন্ধরা গ্রুপের

‘দেশ ও মানুষের কল্যাণ’— এই স্লোগানে অভ্যন্তরীণ সেবা খাতে ইস্ট ওয়েস্ট প্রপার্টি ডেভেলপমেন্ট রূপে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ব্যবসায়িক যাত্রা শুরু করা আহমেদ আকবর সোবহানের বর্তমান বসুন্ধরা গ্রুপ আজ দেশ ও দেশের মানুষের জন্য আশীর্বাদ।

যাত্রা শুরুর পর থেকেই গুণগত মান এবং সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিতের মাধ্যমে ভোক্তাদের কাছেও হয়ে উঠেছে আস্থার প্রতীক। যাত্রা শুরুর প্রথমদিকে এগিয়ে চলার পথ মসৃন না হলেও আহমেদ আকবর সোবহান কখনোই বিচ্যুত হননি নিজ নীতি থেকে বরং নিজের লক্ষ্য অর্জনে থেকেছেন অটল।

আহমেদ আকবর সোবহানের সততা, নিষ্ঠা ও নিরলস প্রচেষ্টাতেই বসুন্ধরা গ্রুপের দেশ ও দেশের বাইরে বর্তমানে বিশাল ব্যাপ্তি ও বিরাট অবস্থান। ভবিষ্যতে ঢাকার মানুষের ওপর চাপ বাড়বে, আবাসন সংকট দেখা দেবে— বিগত চার দশক আগেই এমন উপলব্ধি থেকে আহমেদ আকবর সোবহান আবাসন সংকটরোধে ১৯৮৭ সালে শুরু করেন আবাসন ব্যবসা।

তার এই দূরদৃষ্টিই সেই সময়কার তরুণ উদ্যোক্তা হিসেবে তাকে এগিয়ে দিয়েছিল আজকের এই সফলতার দ্বারে। অবহেলিত জনপদে দেশের সর্ববৃহৎ ও অভিজাত আবাসন এলাকা গড়ে তুলে কৃষকদের বানিয়েছেন কোটিপতি। প্রগতি সরণি থেকে শুরু করে পূর্বদিকে বালু নদী পর্যন্ত পতিত জমিকে রূপান্তর করেছেন সোনায়। এরপর থেকেই মূলত আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে।

বরং আবাসন খাতেই গড়ে তোলেন আমদানি বিকল্প শিল্প। এরপর একে একে ৬০টিরও বেশি শিল্পপ্রতিষ্ঠান চালু করে বসুন্ধরাকে আজ প্রতিষ্ঠিত করেছেন দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ী গ্রুপে। গুণগত মানসম্পন্ন নির্মাণসামগ্রীর উৎপাদন ও সংযোগ শিল্পের বিকাশে আবাসন খাতে যোগ্য নেতৃত্ব দিয়ে দেশের আবাসন খাতকে শিল্পে রূপান্তরের নিপুণ কারিগর আহমেদ আকবর সোবহান। তার হাত ধরেই দেশে ঘটেছে নতুন এক আবাসন বিপ্লব।

এছাড়াও ইস্পাত ও প্রকৌশল, কাগজ, টিস্যু, সিমেন্ট, এলপি গ্যাস, স্যানিটারি ন্যাপকিন, কাগজজাত পণ্য, ড্রেজিং, জাহাজশিল্প, খাদ্য ও পানীয়, বিটুমিন, অয়েল অ্যান্ড গ্যাস, আইসিটি, যোগাযোগ ও পরিবহন, গৃহায়ণ ও নির্মাণ, প্রিন্টিং অ্যান্ড পাবলিশিং, ক্রীড়া, বিনোদন, হাসপাতাল, ফাউন্ডেশনসহ ক্রমান্বয়ে ৬০টিরও বেশি নানা মাত্রার বৃহৎ শিল্প খাতে নিজেদের ব্যবসার বিস্তার ঘটিয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপ।

সারাদেশের মানুষের চাহিদা পূরণ করে প্রতিষ্ঠানটি আজ ছড়িয়ে পড়েছে গোটা বিশ্বেও। আহমেদ আকবর সোবহানের সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা ও বিচক্ষণ তদারকিতেই বসুন্ধরা গ্রুপ অবকাঠামোগতভাবে যেমন অর্জন করেছে দক্ষতা তেমনি প্রতিটি ক্ষেত্রে সফলতার সঙ্গে পরিকল্পনা বাস্তবায়নেও লাভ করেছে যোগ্যতা।

বসুন্ধরা গ্রুপের শিল্প উদ্যোগের মধ্য দিয়েই বাংলাদেশের নানা পণ্যে কমেছে আমদানি-নির্ভরতা। দেশের অর্থনীতিতেও এই গ্রুপ রাখছে সুদূরপ্রসারী প্রভাব। বসুন্ধরা গ্রুপ শুধু ব্যবসায়িক খাতই নয়, তৈরি করেছে বিরাট কর্মক্ষেত্রও। যাদের নানা প্রতিষ্ঠানে সরাসরি কর্মরত রয়েছে ৬০ হাজার কর্মী।

এছাড়া নানাভাবে বসুন্ধরা গ্রুপে কাজ করছেন পাঁচ লক্ষাধিক মানুষ। রাজস্ব খাতেও বিরাট অবদানের মাধ্যমে দেশীয় আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখছে বসুন্ধরা গ্রুপ। বহু বছর ধরেই দেশের শীর্ষস্থানীয় রাজস্বদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে সুনাম ধরে রেখেছে বসুন্ধরা গ্রুপ। ঢাকায় নিজের একটি বাড়ি গড়ার স্বপ্ন দেখায় বসুন্ধরা।

তখন প্লট কিনে বাড়ি করার ধারণাটি ছিলো নতুন। কথাটা তখন তেমন কেউ বিশ্বাসও করতেন না। ধারণা নতুন হলেও আহমেদ আকবর সোবহানের বিশ্বাস ছিলো, যদি আস্থা অর্জন করা যায় তাহলে মানুষ বসুন্ধরার জমি লুফে নেবে। হয়েছেও তাই।

বারিধারা কূটনৈতিক জোনের খুব কাছেই এ, বি, সি ও ডি- চারটি ব্লক নিয়ে বসুন্ধরা যাত্রা শুরু করে ১৫ হাজার একর জমিতে বিস্তৃত হয়েছে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা। নিজের একটি বাড়ি হবে এমন স্বপ্ন যারা দেখতেন, তারা তাদের সাধ্যের মধ্যে বসুন্ধরায় প্লট কেনা শুরু করলেন।

দীর্ঘমেয়াদি কিস্তি সুবিধা ও সময়মতো প্লট বুঝিয়ে দিয়ে পরিকল্পিত আবাসন নির্মাণে বিশ্বস্ততা অর্জন করে বসুন্ধরা গ্রুপ। সেই বিশ্বাসেই বসুন্ধরা গ্রুপ এতদূর এসেছে বলে মনে করছেন বসুন্ধরা গ্রুপ সংশ্লিষ্টরা। এছাড়াও বসুন্ধরা গ্রুপ অন্য প্রকল্পগুলোর মাধ্যমেও মানুষের ভাগ্য বদলে দিয়েছে।

পরিকল্পিত ও আধুনিক সুবিধা-সংবলিত মনোমুগ্ধকর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা আজ কেবল বাংলাদেশই নয়, দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম একটি বৃহৎ আবাসিক এলাকায়ও রূপ নিয়েছে। যেখানে রয়েছে দেশের ব্যস্ততম করপোরেট প্রতিষ্ঠান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, ব্যাংক, কনভেনশন সেন্টার, সুপারশপ, রেস্টুরেন্ট, জিম, বাণিজ্যিক স্থাপনা, খেলার মাঠ ইত্যাদি।

শুধু তাই নয়, একমাত্র বসুন্ধরায়ই আছে দেশের আন্তর্জাতিক মানের চারটি বিশাল কনভেনশন সিটিও। ১৯৯৮ সালে যখন আবাসন ব্যবসা তুঙ্গে তখন বসুন্ধরা গ্রুপ ১৫ বিঘা জমির ওপর গড়ে তোলে দেশের সর্ববৃহৎ বসুন্ধরা শপিংমল।

জানা গেছে, সুবিশাল বসুন্ধরা আবাসিক এলাকাকে শতভাগ নিরাপত্তার চাদরে ঢাকতেও বসুন্ধরা গ্রুপের রয়েছে নিজস্ব প্রায় দুই হাজার নিরাপত্তাকর্মী। যারা সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে কাজ করছেন। নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তাব্যবস্থার জন্য রয়েছে সিসিটিভি ও সিকিউরিটি হেল্প লাইন, নিজস্ব পরিচ্ছন্নতাকর্মীসহ আরও অনেক কিছু।

এছাড়াও বসুন্ধরার বারিধারা প্রকল্পের সাফল্যের পরই দেশের আবাসিক সমস্যার কথা বিবেচনা করে বেশ কয়েকটি প্রকল্প হাতে নেন আহমেদ আকবর সোবহান। পুরান ঢাকার মানুষকে আবাসন সুবিধা প্রদানের জন্য কেরানীগঞ্জের হাসনাবাদে রিভারভিউ নামের প্রকল্প, গাজীপুরের মৌচাক ও স্কাউট জাম্বুরির কাছে আছে মৌচাক হাউজিং প্রকল্প।

ঢাকা-মাওয়া হাইওয়ের পাশে আছে রিভারভিউ গ্রিন টাউন ও বসুন্ধরা দক্ষিণ প্রকল্প। আগামীর ঢাকা অর্থাৎ ঢাকার সবচেয়ে বেশি সমপ্রসারিত জোন পূর্বাঞ্চলে ছোট-বড় বেশ কয়েকটি আবাসন প্রকল্পও হাতে নিয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপ। এতে রাজধানী ঢাকার আবাসন সমস্যা দ্রুতই লাঘব হবে বলে আশা করছে প্রতিষ্ঠানটি।

শুধু নিজের নয়, দেশ ও দেশের মানুষের জন্য নিরলস কাজ করা বসুন্ধরা গ্রুপেরই প্রথম সিমেন্ট কোম্পানি, যার পরই ৯৭টি কোম্পানি হয়েছে দেশে। শুরু থেকেই গুণগত মান ধরে রাখায় বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতি অবিচল আস্থারও জানান দিয়েছে দেশের মানুষ। যার প্রমাণ মেলে দেশের সব বড় অবকাঠামোয় বসুন্ধরা সিমেন্টের ব্যবহার।

মানের বিষয়ে কখনোই আপস না করে বসুন্ধরা গ্রুপ ইতোমধ্যেই শ্রেষ্ঠত্বের প্রমাণ দিতেও সক্ষম হয়েছে। একইভাবে অসংখ্য ব্যবসাতেই বসুন্ধরা প্রথম পা রেখে সফল হয় বসুন্ধরা গ্রুপ, যা দেখে পরবর্তীতে অন্যরাও সেসব ব্যবসায় আসে। ব্যবসায়িক অঙ্গনে সুদীর্ঘ এই পথচলায় বসুন্ধরা গ্রুপ কখনো ব্যাংকে ডিফল্টার হয়েছে- এমন তথ্য জানা নেই কারো।

বসুন্ধরা গ্রুপের অধিকর্তা আহমেদ আকবর সোবহান একজন ক্রীড়া অনুরাগীও। ক্রিকেট, ফুটবল থেকে শুরু করে অসংখ্য খেলাকেই দীর্ঘদিন ধরে পৃষ্ঠপোষকতা করে আসছে দেশের অন্যতম এই বৃহৎ ব্যবসায়ী গ্রুপ। ফুটবলে আছে নিজেদের দল বসুন্ধরা কিংস। আর্থিক পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র এবং শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবকেও। ক্রিকেটে বিপিএলের দল রংপুর রাইডার্সের মালিকও এ গ্রুপ।

এর বাইরেও গলফ, কাবাডি, হকিসহ বিভিন্ন খেলায় নিয়মিতই পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছে বসুন্ধরা গ্রুপ। এবার তারা সম্পূর্ণ নিজস্ব উদ্যোগে আড়াই হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় গড়ে তুলছে আধুনিক স্পোর্টস কমপ্লেক্স।  বসুন্ধরা গ্রুপের বিশাল এই ব্যবসায়িক সাম্রাজ্যের হাল ধরেছে নতুন প্রজন্ম। পুরো ব্যবসাকে বিভিন্ন সেক্টরে বিন্যস্ত করে ভবিষ্যৎ রূপরেখাও দিয়েছেন বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান।

তার মূল্যবান দিকনির্দেশনায় তারই সুযোগ্য চার সন্তান সাদাত সোবহান, সাফিয়াত সোবহান, সায়েম সোবহান আনভীর ও সাফওয়ান সোবহান বসুন্ধরা গ্রুপকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। সায়েম সোবহান আনভীর পালন করছেন গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব। সাদাত সোবহান কো-চেয়ারম্যান, সাফিয়াত সোবহান এবং সাফওয়ান সোবহান ভাইস চেয়ারম্যান।

শুধু ব্যবসায়িক অঙ্গনেই নয়, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়েও সামাজিক দায়িত্ব পালনে দৃষ্টান্ত রেখেছেন আহমেদ আকবর সোবহান। সাফল্যের শীর্ষে অবস্থান করেও ভুলে যাননি দেশীয় সংস্কৃতি ও মানবতার কল্যাণে ব্যক্তিগত দায়িত্ববোধ। দরিদ্র ও অবহেলিত মানুষের কথাও মনে রেখেছেন সব সময়।

উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেই চলেছেন নিত্যদিন। বসুন্ধরা গ্রুপ প্রতিষ্ঠিত দুটি মানবকল্যাণ ফাউন্ডেশন ভাগ্যবিড়ম্বিত মানুষের জীবনচলার পথ সুগম করতে নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে চলেছে প্রতিদিন, প্রতি মুহূর্ত।

এছাড়া নানা সময়ে বিপদগ্রস্ত ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর বহু নজির রেখেছেন আহমেদ আকবর সোবহান। ১৯৫২ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি পুরান ঢাকার ইসলামপুরের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করা আহমেদ আকবর সোবহান আবাসন খাতে বিপ্লব ঘটিয়ে যেমন দেশের মানুষকে দিয়েছেন নিরাপদ আশ্রয়ের ঠিকানা, তেমনি বিপুল কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিকে করেছেন সমৃদ্ধ।

আমারসংবাদ/এআই

Source: আমার সংবাদ

Copyright © 2021 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.