Pre-loader logo

নতুন মৌসুমে নতুনরূপে বসুন্ধরা

নতুন মৌসুমে নতুনরূপে বসুন্ধরা

ফুটবলে শুভদিনই বলা যায়। করোনাভাইরাসে অনিশ্চয়তা থাকার পর ঘরোয়া আসর মাঠে ফিরছে। ফেডারেশন কাপ দিয়েই ফুটবলে নতুন মৌসুমের পর্দা উঠছে আজ। গত মৌসুমে ফেডারেশন কাপ সুষ্ঠুভাবে শেষ হয়। কিন্তু পেশাদার লিগ মাঠে গড়িয়েও থেমে যায়। শেষ পর্যন্ত ক্লাবগুলোর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে করোনাভাইরাসে দেশসেরা এ আসর বাতিল হয়ে যায়। সেই থেকে ফুটবলাররা অলস সময় কাটাতে থাকেন। অবশ্য জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়া ফুটবলাররা অনুশীলন ছাড়াও নেপালের বিপক্ষে দুটি প্রীতি ও দোহায় কাতারের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে দ্বিতীয় লেগের ম্যাচে অংশ নেয়।

তবুও ঘরোয়া আসর নিয়ে শঙ্কা কাটছিল না। সিনিয়র ফুটবলাররা এনিয়ে বেশ কবার বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনের সঙ্গে বৈঠকে বসেন। ফেডারেশনের টার্গেট ছিল নভেম্বর থেকেই ফুটবল মাঠে নামানো। একটু দেরি হলেও করোনাভাইরাসের মধ্যেও ঘরোয়া আসর যে মাঠে গড়াচ্ছে এটাই ফুটবলারদের বড় স্বস্তি। এখানে লিগ কমিটির চেয়ারম্যান ও বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদীর আন্তরিকতাও ছিল চোখে পড়ার মতো। একাধিকবার তিনি ক্লাব প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলাপ করেই ঘরোয়া আসরের তারিখ নির্ধারণ করেন।

১৯৮০ সালে শুরু হওয়া এ টুর্নামেন্ট এবার ৪০ বছরে পা রাখল। উদ্বোধনী দিনেই আসরের চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস ও রানার্সআপ রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস মুখোমুখি হবে। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বিকাল সাড়ে ৫টায় ম্যাচটি শুরু হবে। দেশের প্রথম স্পোর্টস চ্যানেল টি-স্পোর্টস সরাসরি ম্যাচ সম্প্রচার করবে। পেশাদার লিগে ১৩টি দলই অংশ নেবে। চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপের শুরুতে মুখোমুখি হওয়ার ঘটনা দেশের ফুটবলে এটিই প্রথম।
প্রতিপক্ষ রানার্সআপ। তবে আলোচনা বসুন্ধরা কিংসকে ঘিরেই। আবির্ভাবের পর থেকে তারা ঘরোয়া ফুটবলে একের পর এক ইতিহাস গড়ছে। ২০১৮ সালে চ্যাম্পিয়নস লিগে শিরোপা জিতে পরের বছরে পেশাদার লিগে অভিষেক হয়। আর শুরুতে চ্যাম্পিয়ন হয়ে ৭২ বছরে

ঘরোয়া ফুটবলে নতুন ইতিহাস গড়ে। সেই সঙ্গে স্বাধীনতা কাপেও শিরোপা জয়ে ফুটবলে নতুন কিং হয়ে যায় বসুন্ধরা কিংস। গত মৌসুমে লিগ বাতিল হলেও কিংসের ঘর শূন্য থাকেনি। ফেডারেশন কাপ ও নারী লিগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

চ্যাম্পিয়নদের নতুন মৌসুমের যাত্রা। এ নিয়ে তো আলোচনা হবেই। তারপর আবার দলটির নাম বসুন্ধরা। যারা শিরোপা ছাড়া কিছুই বোঝে না। এমনকি রানার্সআপ হওয়াটাও তাদের জন্য হবে বড় ট্র্যাজেডি। নতুন মৌসুমে শুরুটা জয়ে হবে এটাই কিংসের সভাপতি ইমরুল হাসানের প্রত্যাশা। তবে রহমতগঞ্জকে তিনি কোনোভাবেই হালকা চোখে দেখছেন না। তিনি বলেন, ‘রহমতগঞ্জ বরাবরই বড় দলের বিরুদ্ধে জ্বলে ওঠে। আমাদের সতর্ক হয়েই খেলতে হবে। অন্যদিকে কোচ অস্কার ব্রুজোন বলেন, মৌসুমের প্রথম টুর্নামেন্টের গুরুত্ব অনেক। এ ট্রফি জেতা মানে লিগে খেলোয়াড়রা আরও আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠবে। তার মতে বসুন্ধরা আগের চেয়ে আরও বেশি শক্তিশালী। কলিন ড্রেসরা চলে গেলেও দলে কোনো প্রভাব পড়বে না বলে তার বিশ্বাস। কেননা কিংস ব্যক্তি নয় টিমনির্ভর দল। নতুন চার বিদেশি ফার্নান্দেস, রবিনহো, রাউল ও খালেদ শাফেই আরও ভালোমানের। তিন ল্যাটিনে নতুন মৌসুমে যাত্রা হবে তাদের। সবচেয়ে বড় কথা দলের খেলোয়াড়রা সেপ্টেম্বর থেকে অনুশীলনে। জাতীয় দলের হয়ে কিংসের অধিকাংশ খেলোয়াড়ই ম্যাচে নেমেছেন। পুরো দলই পুরোপুরি প্রস্তুত হয়ে মাঠে নামবে। যা ভালো খেলতে শক্তি জোগাবে।

বসুন্ধরা কিংসের নতুন অধিনায়ক হয়েছেন অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার তপু বর্মণ। তিনি বলেন, ‘কিংসের মতো বড় দলের নেতৃত্ব পাওয়াটা নিঃসন্দেহে আনন্দের। নতুন মৌসুমে আমরা ধাপে ধাপে এগুতে চাই। দলে ফিটনেস বা শক্তির কোনো ঘাটতি নেই। আশা করি নতুন মৌসুমেও বসুন্ধরা শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখবে।’

Copyright © 2021 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.