Pre-loader logo

নতুন শক্তিতে সাজবে বসুন্ধরা কিংস

নতুন শক্তিতে সাজবে বসুন্ধরা কিংস

তারা আগের দিন ড্যানিয়েল কলিনদ্রেসকে ছেড়ে দিয়ে এক দফা হতবাক করেছে সবাইকে। কাল জানা গেল, অন্য তিন বিদেশিকেও ছেড়ে দিচ্ছে। থাকবেন শুধু হার্নান বারকোস। তবে আরো ভালো মানের বিদেশি নিয়ে এএফসি কাপে নিজেদের নাম খোদাই করে রাখার মিশন নিয়েছে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নরা।

গতকাল মোটামুটি চূড়ান্ত হয়ে গেছে, স্থগিত হওয়া লিগে যে পাঁচ বিদেশি ছিল তাঁদের কাউকে আর দেখা যাবে না কিংসের জার্সিতে। কঠিন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন বসুন্ধরা কিংসের প্রেসিডেন্ট ইমরুল হাসান, ‘কলিনদ্রেসের সঙ্গে বাকিদেরও আমরা বিদায় করে দিচ্ছি। দলের শক্তি আরো বাড়াতে চাই, তাঁদের চেয়েও ভালো বিদেশি খুঁজছি আমরা। এএফসির দেওয়া সুযোগটা পুরোপুরি কাজে লাগিয়ে কিংস আরো শক্তিশালী হয়ে ফিরতে চায় এএফসি কাপে।’ টিসি স্পোর্টসের বিপক্ষে ৫-১ গোলের জয়ে তাদের এএফসি কাপ অভিষেক হলেও অসমাপ্ত লিগে একটু নড়বড়েই লেগেছিল। এর বিশ্লেষণ করতে গিয়েই ধরা পড়ে বিদেশিদের দুর্বলতা। বিশেষ করে কিরগিজ মিডফিল্ডার বখতিয়ার দুইশোবেকভ, তাজিক ডিফেন্ডার আখতাম নাজারভ ও আর্জেন্টাইন ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার নিকোলাস দেলমোন্তের পারফরম্যান্সে খুশি নয় ম্যানেজমেন্ট। তাই খোলনলচে বদলে ফেলার সিদ্ধান্ত। তা ছাড়া এএফসিও নতুন দল সাজানোর সুযোগ করে দিয়েছে। করোনা-উত্তরকালে টুর্নামেন্টের প্রত্যেক ক্লাব চাইলে দলের ফুটবলারদের পুরো সেট বদলে ফেলতে পারবে। এটাই তাদের আরো উচ্চাভিলাষী করে তুলেছে। কোস্টারিকান বিশ্বকাপারের চেয়েও ভালো বিদেশি যোগ করে এএফসি কাপ মাত করতে চায় বসুন্ধরা কিংস।

সে রকম এক উইঙ্গারের সঙ্গে তাদের আলাপ শুরু হয়েছে। বলিভিয়া জাতীয় দলের এই ফুটবলারের ভিডিও দেখে খুব আগ্রহী হয়েছেন ইমরুল হাসান, ‘অনেক বিদেশির বায়োডাটা হাতে এসেছে। আমরা চাইছি বারকোসের সঙ্গে একজন ক্ষিপ্র গতির উইঙ্গার। কলিনদ্রেসের গতি কমে গিয়েছিল, এ জন্য একটু সমস্যা হচ্ছিল। ভিডিওতে বলিভিয়ান উইঙ্গারকে যে রকম দেখেছি, সে রকম খেললে কলিনদ্রেসের আফসোস আর থাকবে না। এখন সে কোনো ক্লাবের সঙ্গে নেই, এটাও একটা সুবিধা।’ দ্বিপক্ষীয় আলাপ শুরু হয়েছে, বেতন কলিনদ্রেসের চেয়ে বেশি হলেও চ্যাম্পিয়নরা ইতিবাচক। তবে পাকা কথা হওয়ার আগে নাম প্রকাশ করতে চায় না কিংস।

আপাতত এএফসি কাপ আলোচনায় থাকলেও ইমরুল হাসান চাইছেন আগামী মৌসুমের জন্যও বিদেশি চূড়ান্ত করে ফেলতে, ‘আমার লক্ষ্য হলো এএফসি কাপ এবং আগামী মৌসুম। ভালো মানের বিদেশি পেলে পুরো মৌসুমের জন্যই চুক্তি সেরে ফেলব। অক্টোবর-নভেম্বরে এএফসি কাপ শেষ হওয়ার পরপরই তো নতুন মৌসুম আলোচনায় আসবে। জানুয়ারিতে লিগ শুরু হলেও জুনের মধ্যে শেষ হতে পারে, সেভাবে চুক্তি করব বিদেশিদের সঙ্গে।’

ক্লাব ম্যানেজমেন্ট ও কোচ কাল পুরো দিন কাটিয়েছেন বিদেশি ফুটবলারদের বায়োডাটা ও ভিডিও দেখে। এর মধ্যে ইরাক জাতীয় দলের এক ডিফেন্ডারকেও তাদের মনে ধরেছে। এই সেন্ট্রাল ডিফেন্ডারের উচ্চতা ভালো এবং রক্ষণে নেতৃত্ব দেওয়ার গুণ আছে। লিগ স্থগিত হওয়ার আগের ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীর কাছে পীড়াদায়ক হারের পর ক্লাব বিকল্প ভাবনা শুরু করে রক্ষণ নিয়ে। এখানে ইরাকি ডিফেন্ডার চূড়ান্ত হয়ে গেলেও বাকি থাকে দুই মিডফিল্ডার বখতিয়ার ও দেলমোন্তের জায়গা পূরণের কাজ। এঁদের চেয়ে ভালো মানের বিদেশিই খুঁজছে কিংস। এজেন্টরাও নিজের ফুটবলার সম্পর্কে বাড়িয়ে বলে। এ ছাড়া ভিডিওগুলো কত আগের সে নিয়েও বিভ্রান্তি থাকে আর দু-চারটা ঝলক দেখেও ঠিক মান আন্দাজ করা যায় না। আবার অনেকে ইনজুরি লুকিয়ে আলোচনায় বসে। তাই ভালো ফুটবলার বাছাইয়ের কাজও অত সহজ নয়। কঠিন কাজটা তাদের সারতে হবে আগামী আগস্টের মধ্যে, অক্টোবরের ২৩ তারিখ থেকে এএফসি কাপ শুরু হলে তার আগে প্রি-সিজন ট্রেনিংয়ের জন্য কোচ চেয়েছেন ছয় সপ্তাহ।

আপাতত এএফসি কাপ আলোচনায় থাকলেও ইমরুল হাসান চাইছেন আগামী মৌসুমের জন্যও বিদেশি চূড়ান্ত করে ফেলতে, ‘আমার লক্ষ্য হলো এএফসি কাপ এবং আগামী মৌসুম। ভালো মানের বিদেশি পেলে পুরো মৌসুমের জন্যই চুক্তি সেরে ফেলব। অক্টোবর-নভেম্বরে এএফসি কাপ শেষ হওয়ার পরপরই তো নতুন মৌসুম আলোচনায় আসবে। জানুয়ারিতে লিগ শুরু হলেও জুনের মধ্যে শেষ হতে পারে, সেভাবে চুক্তি করব বিদেশিদের সঙ্গে।’ অর্থাৎ এএফসি কাপকে সামনে রেখে আগামী মৌসুমের দল সাজানোর কাজ শুরু করেছে বসুন্ধরা কিংস। তাই পুরনো বিদেশিদের ছেঁটে ফেলে একদম নতুন সাজে সাজতে চায় বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নরা।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.