Pre-loader logo

ফ্ল্যাটের বেশি চাহিদা বসুন্ধরা ও উত্তরায়

ফ্ল্যাটের বেশি চাহিদা বসুন্ধরা ও উত্তরায়

দেশের আবাসন খাত বর্তমানে সবচেয়ে স্থিতিশীল সময় পার করছে। গত কয়েক বছরের মধ্যে রাজধানীর বেশ কয়েকটি এলাকায় ফ্ল্যাটের দামও বেশ কমেছে। ফলে ক্রেতারাও ফ্ল্যাট কিনতে আগ্রহী হচ্ছে। আর বর্তমানে অ্যাপার্টমেন্টের সবচেয়ে বেশি চাহিদা রাজধানীর উত্তরা এবং বসুন্ধরা এলাকায়। দেড় বছর ধরে গবেষণা করে এমন তথ্য প্রকাশ করেছে জার্মানভিত্তিক আবাসন খাতের অললাইন প্রতিষ্ঠান লামোদি ডটকম।
গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর বাংলামোটরে সেভেন হিল রেস্টুরেন্ট আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য তুলে ধরেন লামোদি ডটকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অ্যানি হারম্যান্স। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির উপদেষ্টা বিল্ডিং টেকনোলজি অ্যান্ড আইডিয়াজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এফ আর খান।
সংবাদ সম্মেলনে অ্যানি বলেন, আবাসন সহায়ক সরকারি নীতিমালা, ব্যাংকঋণের সুদের হার কম এবং স্থিতিশীল পরিবেশের কারণে ফ্ল্যাট ক্রেতাদের জন্য এখন সবচেয়ে ভালো সময় যাচ্ছে। রাজধানীর উত্তরা, বসুন্ধরা, বনানী, ধানমণ্ডি এবং গুলশান ইত্যাদি অঞ্চলে অন্যসব এলাকার তুলনায় ফ্ল্যাটের দামও কমেছে ১১ থেকে ৩০ শতাংশ পর্যন্ত।
সংবাদ সম্মেলনে ফ্ল্যাট কেনার উপযুক্ত সময়ের কথা উল্লেখ করে এফ আর খান বলেন, যে কেউ ইচ্ছা করলেই এখন ভাড়ার টাকায় একটি অ্যাপার্টমেন্ট ক্রয় করতে পারে। তিনি জানান, যারা প্রতি মাসে ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকায় ভাড়া বাড়িতে থাকেন। তাঁরা সহজেই এসব সুযোগ নিতে পারেন। দেশের বেশ কয়েকটি ব্যাংক এখন মাত্র ৮ শতাংশ সুদে ঋণ প্রদান করে। এ ছাড়া কেউ রাজধানীর বাইরে সাভার ও আশুলিয়া অঞ্চলে মাত্র ৩০ থেকে ৪৫ লাখ টাকায় ৯০০ শ থেকে ১৩০০ বর্গফুটের একটি অ্যাপার্টমেন্টের মালিক হতে পারেন।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেশে আবাসন খাতের শীর্ষ সংগঠন রিহ্যাবের সদস্যসংখ্যা ১২০০ হলেও প্রতিযোগিতায় সক্ষমতা হারিয়ে এর অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানই নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েছে। আর যারা টিকে আছে এদের অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানই গ্রাহক আস্থায় ভালো। ফলে গুণগত মান এবং নায্য দামেই ক্রেতারা বর্তমানে ফ্ল্যাট বা প্লট কিনছেন।
বসুন্ধরা এবং উত্তরায় ফ্ল্যাটের সবচেয়ে বেশি চাহিদা কেন জানতে চাইলে অ্যানি জানান, নিরাপত্তাসহ জীবন-মানের মোটামুটি সব ধরনের সুযোগ থাকায় এ অঞ্চলের চাহিদা বেশি। এ ছাড়া সবদিক থেকে যোগাযোগের একটা ভালো সুবিধা রয়েছে।
লা-মোডি একটি জার্মানভিত্তিক প্রতিষ্ঠান। বিশ্বের প্রায় ৩৩ দেশে আবাসনসংক্রান্ত ই-কমার্স ব্যবসার সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটি জড়িত।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.