Pre-loader logo

বসুন্ধরায় জমজমাট পুরান ঢাকার ইফতার

বসুন্ধরায় জমজমাট পুরান ঢাকার ইফতার

ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরা (আইসিসিবি) এখন পুরান ঢাকার রকমারি স্বাদু খাবারের মৌ মৌ ঘ্রাণে জমজমাট। এখানে চলমান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী বাহারি ইফতার নিয়ে ইফতার বাজার। রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড সংলগ্ন দেশের বৃহৎ সম্মেলন সিটিতে রয়েছে পরিবার, বন্ধুদের নিয়ে বিশেষ ইফতার পার্টির সুযোগ। যে কেউ চাইলে প্রতিদিন সন্ধ্যায় আইসিসিবির গুলনকশা হলে বসেই মজাদার ইফতারি করতে পারবেন। রমজান জুড়ে আইসিসিবিতে পাওয়া যাবে সবার পছন্দের সব খাবার আইটেম। পার্টি আয়োজনেরও ব্যবস্থা রয়েছে। আইসিসিবি প্রাঙ্গণে গিয়ে দেখা গেছে, পুরান ঢাকার নামকরা ৮১টি প্রতিষ্ঠান নিয়ে বিশাল এই ইফতার বাজার চলছে। এতে আছে বাবা রাফি, ৩০০ ফিট এক্সপ্রেস, মোঘলই আজম, বাধনস, বহেড়া, ফ্রেস ফ্রুট জুসের মতো ক্যাটারিং প্রতিষ্ঠান। এখানে তৈরি করা পুরান ঢাকার ঐতিহ্যের খাবার ‘বড় বাপের পোলায় খায়’ পাওয়া যাচ্ছে প্রতিকেজি ১২০০ টাকায়। বাবা রাফির স্টলে অর্ডার দিলে খাবার তাত্ক্ষণিক তৈরি করে দেওয় হয়। স্টল কর্মী মো. শান্ত জানালেন এখানে মানসম্মত খাবার তৈরি করা হয়। গ্রাহকের প্রচুর আগ্রহ আছে। প্রতিষ্ঠানগুলো অত্যন্ত স্বাস্থ্যসম্মতভাবে তৈরি খাবার নিয়ে স্টল সাজিয়েছেন। পুরান ঢাকার বিখ্যাত বড় বাপের পোলায় খায়, বিফ কিমা ভুনা, লেগ রোস্ট, বিফ কালো ভুনা, বিফ লিভার ভুনা, মাটন রেজালা, মোরগ মোসাল্লাম, বিফ কালিজিরা, বিফ ব্রেইন মাসালা, বিফ নেহারি, বিফ চাপ, শাহী বিফ হালিম, শাহী মাটন হালিম। তুলনামূলক সস্তা দামেই পাওয়া যাচ্ছে এসব ইফতার আইটেম। বিভিন্ন প্রকার ঝাল খাবারের সঙ্গে আছে ফলের জুস, জাফরানি বাদাম পেস্তা দুধের শরবত, শাহী লাবাং, শাহী জিলাপি। ৩০০ ফিট এক্সপ্রেস স্টলের কর্মকর্তা আবু সাঈদ জানালেন প্রতিদিন কোয়ালিটি পরীক্ষা করে খাবার তৈরি করা হয়। আমাদের এখানে তুলনামূলক কম দামে খাবার পাওয়া যায়। এর মধ্যে রয়েছে, বাটার নান প্রতি পিছ ৪৫ টাকা, চিকেন সাসলিক ৭৫ টাকা, বিফ সাসলিক ১০০ টাকা, হায়দ্রাবাদ বিরিয়ানি ৩৮০ টাকা প্যাকেট, বিফ কালা ভুনা ৩৫০ টাকা, চিকেন জালি কাবাব ৮০ টাকা পিছ, ফিস অ্যান্ড চিপস ১৮০ টাকা, ফ্রাইড জাম্বো প্রন ১২০ টাকা, মাটন লেগ রোস্ট ১৫৫০ টাকা প্রতি পিছ। ঐতিহ্যবাহী খাবারের মোঘল ই আজম স্টলের এক মালিক তানভির আহমেদ জানান, প্রতিদিন নতুন খাবার তৈরি করা হয়। বেশিরভাগই বিক্রি হয়ে যায়। আমাদের আইটেমের মধ্য রয়েছে দই বড়া ৭০ টাকা পিছ, চিকেন কাবাব ১০০ টাকা, বিফ তেহারি, আস্ত খাসি, হালিম, জিলাপি। এ ছাড়া রয়েছে এরাবিয়ান বিভিন্ন খাবার। আরেক স্টলে দেখা গেল বিফ লিভার ভুনা কেজি ১০০০ টাকা, মাটন রেজালা কেজি ১৫০০ টাকা, মোরগ মোসাল্লাম পিছ ৫০০ টাকা, বিফ কালিজিরা কেজি ১২০০ টাকা, বিফ নেহারি কেজি ৬০০ টাকা। বিভিন্ন প্রকার ফ্রাইয়ের মধ্যে রয়েছে পনির সমুছা পিছ ৩০ টাকা, চিকেন স্প্রিং পিছ ৪০ টাকা, চিকেন ললিপপ পিছ ৮০ টাকা, মাটিন জালি কাবাব পিছ ৭০ টাকা, বিফ চাপ পিছ ১২০ টাকা, চিকেন সাসলি ১০০ টাকা, মাটন চাপ ১৫০ টাকা, চিকেন বারবি কিউ ১৫০ টাকা, চিকেন ফ্রাই ১৫০ টাকা। বিভিন্ন প্রকার মিষ্টি জাতীয় খাবারের মধ্যে রয়েছে রেশমি শাহী জিলাপি কেজি ৮০০ টাকা, শাহী জিলাপি কেজি ৫০০ টাকা, জাফরানি বাদাম পেস্তা দুধের শরবত ৩০০ টাকা লিটার, শাহী লাবাং ২০০ টাকা লিটার। এ ছাড়া বিভিন্ন প্রকার ফলের জুস পাওয়া যাচ্ছে স্বল্পমূল্যে। এই ইফতার বাজারের আয়োজক আইসিসিবি। আয়োজকরা জানান প্রতিদিন খাবার পরীক্ষা করে স্টলে ঢুকতে দেওয়া হয়। কোনো বাসি খাবারের ঠাঁই নেই এখানে। সারাদিন বিক্রি হওয়ার পর যা থেকে যাবে তা নিয়ে যেতে হবে। বাসি খাবার বা আগের দিনের খাবার বিক্রয় নিষিদ্ধ। রোজাদারদের জন্য এখানে অজু-নামাজের বিশেষ ব্যবস্থা করা হয়েছে। পর্যাপ্ত গাড়ি পার্কিয়ের ব্যবস্থা রয়েছে।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.