Pre-loader logo

বসুন্ধরা কিংসের জমকালো দলবদল

বসুন্ধরা কিংসের জমকালো দলবদল

সহিস কিছুক্ষণ পর পরই ঘোড়ার পিঠে চাবুক মারছে। হ্রেষা রব তুলে ছুটে চলেছে ঘোড়া। এ যেন রাজার বাহন। ঢাক-ঢোল আর বাদ্য বেজে চলেছে। রাজার মতোই বাফুফে ভবনে প্রবেশ করল বসুন্ধরা কিংস। বাংলাদেশের ফুটবল অঙ্গনে এরই মধ্যে ‘কিংস’ খ্যাতি পেয়ে গেছে ক্লাবটি। গতকাল গাড়ি-ঘোড়ায় চড়ে প্রথম দল হিসেবে দলবদল করল প্রিমিয়ার লিগের নবাগত দলটি। দুটি ঘোড়ার গাড়ি, ২৫টি বাস, ১৫টি মাইক্রো আর অসংখ্য মোটর বাইকে চড়ে সমর্থকরা যোগ দেয় বসুন্ধরা কিংসের দলবদলে। হাজার হাজার সমর্থকের উপস্থিতি মনে করিয়ে দিয়েছিল নব্বইয়ের দশকের আবাহনী-মোহামেডানের দলবদলের কথা। সে সময় ঢাকার ফুটবলে দুই ঐতিহ্যবাহী ক্লাবের দলবদলে হাজার হাজার ফুটবলভক্ত ভিড় জমাত। বসুন্ধরা কিংস পুরনো গৌরব ফিরিয়ে আনার যে দৃঢ়তা নিয়ে ছুটে চলেছে, দলবদলের প্রথম প্রহরেই তার নমুনা দেখিয়ে দিল তারা!
দলে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মানের ফুটবলারের ছড়াছড়ি। স্পেন, ব্রাজিল, কোস্টারিকার ফুটবলাররা কেবল শোভা বাড়াতে নয়, এসেছেন বসুন্ধরা কিংসকে সত্যিকারেই কিংয়ের আসনে বসাতে। স্থানীয় ফুটবলারদের মধ্যে সেরা তারকারা যোগ দিয়েছেন এই ক্লাবে। পুরনোদের মধ্যে হেমন্ত, নাসির, সবুজ, মতিনরা আছেন। নতুনদের মধ্যে সুফিল, ইমন, মাশুকরা। জাতীয় দলের অভিজ্ঞ ফুটবলারদের সঙ্গে আছেন ভিনদেশি তারকারা। বিশ্বকাপ খেলা কলিন ড্রেস, ব্রাজিলের মার্কোস, স্পেনের গোটর। এমন এক দল নিয়ে যাত্রা করছে বসুন্ধরা কিংস যারা যে কোনো ময়দানে নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণ করার জন্য অধীর হয়ে অপেক্ষার প্রহর গুনছে। এরই মধ্যে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার সবুজ-শ্যামল পরিবেশে নীরবে-নিভৃতে অনুশীলন শুরু করেছে দলটা। কোচ অস্কার ব্রুজনের কঠোর নীতিমালা মেনে নিজেদেরকে প্রস্তুত করে তুলছে আসন্ন মৌসুমের জন্য।
গতকাল বাফুফে ভবনের কনফারেন্স কক্ষে বসুন্ধরা কিংসের দলবদল অনুষ্ঠানে বসুন্ধরা কিংসের সভাপতি ইমরুল হাসান বলেন, ‘বসুন্ধরা গ্রুপ বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় একটা প্রতিষ্ঠান। আমরা শুরু থেকেই চেষ্টা করছি ফুটবলের হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতে। মান উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে।’ তিনি আশা প্রকাশ করেন, এক সময় সালাম মুর্শেদী, আসলাম আর সাব্বিরদের খেলা দেখতে যেভাবে ফুটবলভক্তদের ঢল নামতো মাঠে আবার তেমনটাই হবে। বসুন্ধরা কিংসে বিশ্বকাপ খেলা কোস্টারিকার কলিন ড্রেস আছেন। ইমরুল বলেন, ‘বিশ্বকাপ খেলা তারকাকে দেখার জন্য হলেও তো মানুষ মাঠে আসবে।’ তবে ফুটবলের উন্নয়নের জন্য লিগগুলো নিয়মিত আয়োজন করার অনুরোধ জানান ইমরুল হাসান। বাফুফের সিনিয়র সহসভাপতি সালাম মুর্শেদী বলেন, ‘বসুন্ধরা গ্রুপ বাংলাদেশের সামাজিক ও অর্থনৈতিক জীবনের উন্নতিতে বড় ভূমিকা রাখছে। ফুটবলেও তারা দারুণ ভূমিকা পালন করছে।’ বসুন্ধরা কিংসের ব্যাপারে সালাম মুর্শেদী বলেন, ‘দারুণ একটা দল গঠন করেছে বসুন্ধরা কিংস। ইউরোপিয়ান ফুটবলের স্ট্রাকচার মেনে তারা দল পরিচালনা করছে। পেশাদারিত্বের সর্বোচ্চ নমুনা প্রদর্শন করেছে বসুন্ধরা কিংস।’ দল নিয়ে দারুণ আশাবাদী স্প্যানিশ কোচ অস্কার ব্রুজনও। তিনি বলেন, ‘বসুন্ধরা কিংস আমাদেরকে দারুণ একটা প্ল্যাটফর্ম উপহার দিয়েছে। এবার আমাদের দায়িত্ব হলো তাদের স্বপ্নগুলো পূরণ করা। আমাদের সেই আত্মবিশ্বাস আছে।’
সাংবাদিকদের করা এক প্রশ্নের জবাবে বসুন্ধরা কিংসের সভাপতি ইমরুল হাসান জানান, স্থানীয় ফুটবলারদের মধ্যে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাবেন মো. ইমন মাহমুদ। তিনি অঙ্কটা বলেননি। তবে দাবি করেছেন, ‘এই ক্লাবে সবাইকে যোগ্য পারিশ্রমিক দিয়ে নেওয়া হয়েছে।’ সবাই এখানে পরিশ্রমের ফল পাবেন বলেও জানান তিনি।
গতকাল বসুন্ধরা কিংসের দলবদল অনুষ্ঠানে এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বাফুফে সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ, বসুন্ধরা কিংসের সিনিয়র সহসভাপতি লিয়াকত হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মিনহাজুল ইসলাম মিনহাজসহ ক্লাবের অন্যান্য কর্মকর্তা।
‘সব ট্রফি ঘরে তুলতে চাই’
ফুটবলে দলবদলের প্রক্রিয়ায় প্রথম দল হিসেবে আনুষ্ঠানিকতা ছাড়ল প্রিমিয়ার লিগে প্রমোশন পাওয়া নতুন দল বসুন্ধরা কিংস। গতকাল বাফুফে ভবনে দলবদল অনুষ্ঠানে ক্লাব সভাপতি ইমরুল হাসান দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন, ‘আমরা এবার সব ট্রফি ঘরে তুলতে চাই।’ কিছুদিনের মধ্যেই ফেডারেশন কাপ শুরু হওয়ার কথা। মৌসুমের শুরুতে এই টুর্নামেন্ট জিতেই যাত্রা করতে চান তিনি। ইমরুল অবশ্য এর কারণটাও ব্যাখ্যা করলেন, ‘আমরা শক্তিশালী একটা দল গঠন করার জন্য সম্ভাব্য সেরা উপায়ে চেষ্টা করেছি। কোচের চাহিদা পূরণ করার জন্য বিভিন্ন দেশের ফুটবলারদের নিয়ে এসেছি।’ দলীয় ফরমেশনের প্রয়োজনেই ফুটবলার নেওয়া হয়েছে। তাছাড়া প্রতিটা পজিশনেই আছে বিকল্প ফুটবলার। বসুন্ধরা কিংস শক্তিশালী দল নিয়ে এবার লক্ষ্যপূরণ করতে পারে কি না, তা দেখা যাক।
বসুন্ধরা কিংস স্কোয়াড
গোলরক্ষক : মো. মিতুল হাসান, আনিসুর রহমান জিকো, নুর মুহাম্মদ ও রকিবুল হাসান তুষার।
ডিফেন্ডার : সাদ্দাম হোসেন অ্যানি, মো. শোয়েব মিয়া, রিদওয়ান বিন রহমান রাকিন, নুরুল নাঈম ফয়সাল, মো. রেজাউল করিম রেজা, সুশান্ত ত্রিপুরা, জর্জ গোটর ব্লাস, মো. নাসির উদ্দিন চৌধুরী, মো. দিদারুল হক ও মো. সালাউদ্দিন।
মিডফিল্ডার : কৃষ্ণ মালি, মো. নাঈম উদ্দিন, মাশুক মিয়া জনি, মো. ইমন মাহমুদ, ড্যানিয়েল কলিন ড্রেস সোলেরা, মো. সোহানুর রহমান, শেখ আলমগীর কবির রানা, মো. ইব্রাহিম, হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাস, মার্কোস ভিনিসাস দা কস্তা, সোয়ারেস দা সিলভা, মো. শামীম, সানোয়ার হোসেন, সালাউদ্দিন শেখ ও মো. রকিবুল ইসলাম।
ফরোয়ার্ড: মো. মতিন মিয়া, তওহীদুল আলম সবুজ, মাহবুবুর রহমান সুফিল ও বিশাল দাস।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.