Pre-loader logo

বসুন্ধরা পেপারের আইপিও লটারির ড্র অনুষ্ঠিত

বসুন্ধরা পেপারের আইপিও লটারির ড্র অনুষ্ঠিত

দেশের শীর্ষ শিল্প পরিবার বসুন্ধরা গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা পেপার মিলস লিমিটেডের আইপিও’র শেয়ার বরাদ্দের লটারি ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে। কম্পিউটার প্রযুক্তির সহায়তায় বিশেষ একটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত ড্রতে সাধারণ বিনিয়োগকারী, ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী এবং অনিবাসী বাংলাদেশি (এনআরবি)- এই তিনটি ক্যাটেগরিতে মোট ১ কোটি ৪ লাখ ১৬ হাজার ৬৬৬টি শেয়ার বরাদ্দ দেওয়া হয়। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) একজন অভিজ্ঞ শিক্ষকের সমন্বয়ে এই লটারি পরিচালিত হয়। গতকাল রাজধানীর কুড়িলসংলগ্ন ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরার (আইসিসিবি) গুলনকশা হলে লটারি ড্র অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে বসুন্ধরা পেপার মিলসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাফওয়ান সোবহান বলেন, ‘এটা কেবল পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহ নয়। আমরা আমাদের পরিবারের নতুন সদস্যও জোগাড় করছি। বসুন্ধরা পেপার মিলস স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্তির পর থেকে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে এই কোম্পানির প্রতি অগাধ আস্থা পরিলক্ষিত হয়েছে। আপনাদের এই আস্থা ও ভালোবাসার জন্য ধন্যবাদ জানাই। এ বছর এই কোম্পানির ২৫ বছর পূর্তি হতে যাচ্ছে। আশা করি, বেশ ঘটা করেই এটা আমরা উদযাপন করতে পারব।’ এ সময় তিনি আইপিও’র লটারি অনুষ্ঠানে সহযোগিতা করায় বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশিনসহ (বিএসইসি) সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। অনুষ্ঠানে নিয়ন্ত্রক সংস্থার পক্ষ থেকে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রতিনিধি বদরুল ইসলাম শাওন, চট্টগ্রাম এক্সচেঞ্জের প্রতিনিধি আলী রাগীব, সিডিবিএল এর প্রতিনিধি আসলাম আরফিন, এএএ ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লি.র এমডি মো. ওবাইদুর রহমান এফসিএ, এএফসি ক্যাপিটাল লি.র চেয়ারম্যান আরিফ আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া বসুন্ধরা পেপার মিলসের স্বতন্ত্র পরিচালক খাজা আহমেদুর রহমান, কোম্পানি সচিব এম নাসিমুল হাই, প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা মির্জা মুজাহিদুল ইসলামসহ প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা ও উল্লেখযোগ্যসংখ্যক সাধারণ বিনিয়োগকারী উপস্থিত ছিলেন। আইন অনুযায়ী, যোগ্য বিনিয়োগকারীর জন্য নির্ধারিত দর থেকে ১০ শতাংশ কমিয়ে অর্থাৎ ৭২ টাকায় শেয়ার পাবেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। এ লক্ষ্যে নির্ধারিত কোটায় ৭২ টাকা দরে ৭৫ কোটি টাকার শেয়ার বরাদ্দের আবেদন গ্রহণের শেষ সময় ছিল গত ৯ মে। এ সময়ের মধ্যে ৭৫ কোটি টাকার শেয়ারের বিপরীতে ৯ গুণেরও বেশি আবেদন জমা পড়ে। টাকার অঙ্কে এর পরিমাণ ৬৮৩ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। এ ছাড়া মোট ২০০ কোটি টাকার শেয়ারের বিপরীতে ১ হাজার ৬৪০ কোটি ৬৫ লাখ টাকার আবেদন জমা পড়ে। গতকালের লটারির ড্রতে সাধারণ বিনিয়োগকারী ক্যাটেগরিতে ৭ লাখ ৭০ হাজার ২৭টি আবেদনের মধ্য থেকে ৬২ হাজার ৫০০ লট শেয়ার বরাদ্দ দেওয়া হয়। ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী ক্যাটাগরিতে ৮৩ হাজার ৮৮৪টি আবেদনের মধ্য থেকে ১৫ হাজার ৬২৪ লট শেয়ার এবং এনআরবি ক্যাটাগরিতে ৯২ হাজার ৯৫টি আবেদনের মধ্য থেকে ২৬ হাজার ৪২ লট শেয়ার বরাদ্দ দেওয়া হয়। প্রতিটি লটে ১০০টি করে মোট ১ কোটি ৪ লাখ ১৬ হাজার ৬৬৬টি শেয়ার বরাদ্দ দেওয়া হয়। সর্বশেষ শেয়ারটির ‘অড শেয়ার’, এতে ৬৬টি শেয়ার রয়েছে।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.