Pre-loader logo

বসুন্ধরা ফুটবল উন্মাদনা

বসুন্ধরা ফুটবল উন্মাদনা

চলে এসেছে ফুটবলে দুনিয়া কাঁপানো আরেকটি বিশ্বকাপ। ১৪ জুন ৩২ দেশকে নিয়ে আয়োজিত রাশিয়ায় এই আসরের পর্দা উঠবে। বাংলাদেশ বিশ্বকাপে কখনো খেলতে পারবে কিনা সন্দেহ রয়েছে। স্বপ্নেও ভাবা যায় না ক্রিকেটের মতো ফুটবলের বিশ্বকাপে লাল-সবুজের জার্সি পরে বাংলাদেশ মাঠে নামবে। না খেলুক তবু বিশ্বকাপ এলে দেশ যেন কেঁপে ওঠে। ঘরে ঘরে উড়ে আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল বা অন্য দেশের পতাকা।
বিশ্বকাপ নয়, ফুটবলে এখন যে মান বা হাহাকার চলছে তাতে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে শিরোপা জেতাটা স্বপ্নে পরিণত হয়েছে। গত তিন আসরে বাংলাদেশ সেমিফাইনালই খেলতে পারেনি। গ্রুপ পর্ব খেলেই বিদায় নিয়েছে। মান কমে যাওয়ায় ঘরোয়া ফুটবলে জনপ্রিয়তাও চরম ধস নেমেছে। বড় বড় দলের খেলাতেও গ্যালারি থাকছে প্রায় ফাঁকা। ফুটবলে হারানো গৌরব ও জনপ্রিয়তা ফিরিয়ে আনতে বসুন্ধরা গ্রুপের নিজস্ব ক্লাব বসুন্ধরা কিংস নানা পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। গত মৌসুমে চ্যাম্পিয়নশিপ লিগে চ্যাম্পিয়ন হয়ে পেশাদার অর্থাৎ প্রিমিয়ার লিগে জায়গা করে নিয়েছে বসুন্ধরা কিংস। দেশসেরা আসরে অভিষেকের আগেই দেশের ফুটবলে সাড়া ফেলে দিয়েছে বসুন্ধরা কিংস। ফুটবলার সংকট কাটাতে ক্লাবটি বিভাগ ভাগ করে ক্লাবের নিজস্ব মাঠে অনূর্ধ্ব-১৭ ক্যাম্পও শুরু করেছে। ব্যাপক সাড়া পড়েছে এতে। এখানেই থেমে থাকেনি তাদের অগ্রযাত্রা। ফুটবলকে জাগাতে আয়োজন করছে অনূর্ধ্ব-১২ ও সিনিয়রদের টুর্নামেন্ট। আজ থেকে রংপুরে বহু প্রতীক্ষিত এ আসরের পর্দা উঠছে।
বাংলাদেশের ফুটবলে যে কোনো আসর ঢাকাতে হবে তা যেন কালচারে পরিণত হয়েছে। বসুন্ধরা কিংস এখানেও ব্যতিক্রম এনেছে। বসুন্ধরা কিংসই দেশের প্রথম ক্লাব যারা এ ধরনের টুর্নামেন্ট মাঠে নামাচ্ছে তাও আবার ঢাকার বাইরে। নতুনত্ব বলতে যা বোঝায় তা দেখা যাচ্ছে নতুন এই ক্লাবকে ঘিরে। রংপুর বিভাগের আট জেলা রংপুর, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁ, গাইবান্ধা, নীলফামারী, কুড়িগ্রাম, দিনাজপুর ও লালমনিরহাট অংশ নেবে।
টুর্নামেন্ট উপলক্ষে গতকাল বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় বসুন্ধরা কিংস ক্লাব ভবনে এক জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সেখানে ক্লাব সভাপতি মো. ইমরুল হাসান দৃঢ় কণ্ঠে বলেছেন, ‘আমাদের ক্লাব শুধু সাফল্যের জন্য দল গড়বে না। দেশের ফুটবল উন্নয়নে কাজ করবে। আমরা চাই ফুটবলে হারানো গৌরব ও জনপ্রিয়তা ফিরিয়ে আনতে। টুর্নামেন্ট থেকে অবশ্যই আমরা ভালো মানের খেলোয়াড় খুঁজে পাব। পরবর্তীতে আমরা উন্নতমানের ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করব। যারা পরবর্তীতে শুধু বসুন্ধরা কিংস নয় অন্য ক্লাবেও খেলতে পারবে।’
ফুটবল উন্নয়নে ইউরোপিয়ান ক্লাবগুলো যে পদ্ধতিতে প্রতিভা খুঁজে বেড়ায় বসুন্ধরা কিংসও সেই পথ বেছে নিয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ বলেন, ‘আমরা বসুন্ধরা কিংসের সবকিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলার অনুমতি দিই। তারা চ্যাম্পিয়ন হয়ে পেশাদার লিগে উঠেছে। ফুটবল উন্নয়নে ক্লাবটি যে ধরনের উদ্যোগ হাতে নিয়েছে তাতে আমরা অভিভূত।’ বাফুফে থেকে সব রকমের সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি। রংপুর টুর্নামেন্ট ফুটবলে উপকারে আসবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। টুর্নামেন্টে বাফুফে খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্সের দিকে নজর রাখবে। যাতে ভালোমানের খেলোয়াড় বাছাই করে উন্নতমানের ট্রেনিং দেওয়া যায়।
শুধু রংপুর নয়, পরবর্তীতে দেশের অন্যান্য অঞ্চলেও টুর্নামেন্ট করার চিন্তা-ভাবনা আছে বসুন্ধরা কিংসের। প্রায় ১৩ বছর পর রংপুর স্টেডিয়ামে ফুটবলে কোনো টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এ নিয়ে কিশোরদের উৎসাহ-উদ্দীপনা চোখে পড়ার মতো। এক সময়ে ঢাকা লিগে অধিকাংশ খেলোয়াড়ই আসতো বাইরের জেলা থেকে। এখন ঝিমিয়ে পড়ায় সালাম, আসলাম, রুমি, মামুন জোয়ার্দারদের মতো খেলোয়াড় সৃষ্টি হচ্ছে না।
বৃহত্তর রংপুর থেকেও কম তারকা বের হয়নি। দেশের বিখ্যাত গোলরক্ষক শহিদুর রহমান শান্টু, কাজী সাত্তার, কাজী আনোয়ার, মোসাব্বের, কোহিনুর ও মুনদের মতো ফুটবলারদের আবির্ভাব ঘটে এই অঞ্চল থেকে। এখন সেখানেই শুধুই শূন্যতা। রংপুরের বিলুপ্ত প্রায় ফুটবল জেগে ওঠবে বসুন্ধরা কিংসের মাধ্যমে সেটাই ক্রীড়ামোদীদের প্রত্যাশা। ইমরুল হাসান বাফুফের কাছে অনুরোধ রাখেন পেশাদার লিগ শুধু ঢাকায় বন্দী না রেখে অন্য জেলাতেও ছড়িয়ে দিতে। এতে ফুটবলই উপকৃত হবে। রংপুরকে বসুন্ধরা কিংসের হোম ভেন্যু বেছে নেওয়ার ঘোষণাও দেন তিনি।
শুধু ফুটবল নয়, ক্রিকেট উন্নয়নেও কাজ করবে বসুন্ধরা গ্রুপের বসুন্ধরা কিংস। এ লক্ষ্যে বিকেএসপি আদলে রূপগঞ্জে একাডেমি গড়ার কাজও শুরু হয়ে গেছে। সংবাদ সম্মেলনে স্যাটেলাইট চ্যানেল নিউজ টোয়েন্টিফোরের নির্বাহী পরিচালক হাসনাইন খোরশেদ আশা প্রকাশ করেন বসুন্ধরা কিংসের মাধ্যমে শুধু ফুটবল নয় দেশের ক্রীড়াঙ্গনও নতুনভাবে জেগে ওঠবে। টুর্নামেন্টের উল্লেখযোগ্য অংশ প্রতিদিনই নিউজ টোয়েন্টিফোরে দেখানো হবে বলে তিনি জানান।
বসুন্ধরা কিংসের সাধারণ সম্পাদক মিনহাজুল ইসলাম মিনহাজ বলেন, ফুটবল উন্নয়নে কাজ করতে চাই। এ জন্য অন্যদেরও সহযোগিতা প্রয়োজন রয়েছে। রংপুর থেকে শুরু করছি।
ভবিষ্যতে দেশের অন্য জেলাতেও টুর্নামেন্ট করা পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের। আজ উদ্বোধনী দিনে জুনিয়র ও সিনিয়র গ্রুপে ৪টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ১১টায় জুনিয়রে রংপুর-পঞ্চগড়, ১২টায় ঠাকুরগাঁ-গাইবান্ধা। আড়াইটায় সিনিয়র গ্রুপে ঠাকুরগাঁ-গাইবান্ধা। তবে বিকাল ৪টায় রংপুর ও পঞ্চগড়ের খেলা দিয়ে টুর্নামেন্ট উদ্বোধন হবে। প্রতি ম্যাচে দর্শকদের জন্য র‌্যাফেল ড্রর ব্যবস্থা করা হয়েছে। যেখানে থাকবে আকর্ষণীয় পুরস্কার

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.