Pre-loader logo

বসুন্ধরা যমুনা শপিং মল নিউমার্কেট ঈদের আগে খুলছে না

বসুন্ধরা যমুনা শপিং মল নিউমার্কেট ঈদের আগে খুলছে না

রাজধানীতে ঈদের আগে খুলছে না বসুন্ধরা সিটি, যমুনা ফিউচার পার্ক, পিংক সিটি, নিউমার্কেট, গাউছিয়া, চাঁদনী চক, চন্দ্রিমাসহ বড় বড় শপিং মল ও মার্কেট। এসব শপিং মল ও মার্কেট কোনো অবস্থাতেই করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি নেবে না। গতকাল সকালে বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান বসুন্ধরা শপিং মল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেন। পরে অন্যান্য শপিং মল ও মার্কেটের মালিক, দোকান মালিক সমিতিও মার্কেট না খোলার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

পান্থপথে বসুন্ধরা সিটি এবং কুড়িলের কাছে যমুনা ফিউচার পার্ক ঢাকার সবচেয়ে বড় শপিং মল। যেখানে ঈদের সময় ব্যাপক লোকের ভিড় হয়। এ প্রসঙ্গে বসুন্ধরা গ্রুপের মিডিয়া উপদেষ্টা মোহাম্মদ আবু তৈয়ব বলেন- করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান বসুন্ধরা সিটি শপিং মল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এই শপিং মলে প্রতিদিন লাখো মানুষ কেনাকাটার জন্য আসে। ঈদের আগে আরও ভিড় বাড়ে। এই মহাসংকটের সময়ে আমরা ঝুঁকি নিতে চাই না। ‘আগে মানুষের জীবন, তারপর ব্যবসা’ এই উপলব্ধি থেকেই আমরা শপিং মল না খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
আবু তৈয়ব আরও বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপ ইতিমধ্যে কভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসার জন্য তাদের কনভেনশন সেন্টারকে দেশের সবচেয়ে বড় অস্থায়ী হাসপাতালে রূপান্তরিত করেছে। বসুন্ধরা সব সময় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করে আসছে। মানবতার কথা চিন্তা করেই বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন। করোনাভাইরাস মহামারীর শুরু থেকেই তিনি দেশের মানুষের পাশে আছেন। শপিং মল না খোলা তার আরেকটি যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত।

ঈদের আগে যমুনা ফিউচার পার্কেও নামে ক্রেতাদের ঢল। যমুনা ফিউচার পার্ক কর্তৃপক্ষ গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, এই মহামারীর সময়ে কোনো ঝুঁকি নিতে চাই না আমরা। সে কারণেই যমুনা ফিউচার পার্ক না খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তারপর খোলা হবে। এদিকে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, বসুন্ধরা সিটি, যমুনা ফিউচার পার্ক, পিংক সিটি, নিউমার্কেট, গাউছিয়া, চাঁদনী চক ও চন্দ্রিমাসহ রাজধানীর বেশ কিছু সুপার মার্কেট এখন খুলছে না। তিনি বলেন, সরকার যেসব শর্তে দোকান ও শপিং মল খুলতে দিয়েছে তা মানা সম্ভব হচ্ছে না বলেই অনেকে তাদের মার্কেট, মল ও দোকান এখন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.