Pre-loader logo

রমজানে জমবে দক্ষিণ এশীয় ফ্যাশন মেলা

রমজানে জমবে দক্ষিণ এশীয় ফ্যাশন মেলা

ঈদে হাল ফ্যাশনের পোশাক, প্রসাধনী ও গয়না কিনতে অনেকেই থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, ভারতসহ বিভিন্ন দেশে যান। সাধ থাকলেও সাধ্যের অভাবে সবার পক্ষে সেখানে যাওয়া সম্ভব হয় না। তাই আন্তর্জাতিক মানের ওই সব পণ্য দেশেই কেনাকাটার সুযোগ করে দিতে ঢাকায় ‘সাউথ এশিয়ান ফ্যাশন অ্যান্ড লাইফস্টাইল ফেস্ট ২০১৬’ আয়োজন করছে দেশের বৃহত্তম ভেন্যু সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরা (আইসিসিবি)।
৭ থেকে ২৫ রমজান পর্যন্ত এ মেলা চলবে। রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোডে ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি-২ অর্থাৎ ‘পুষ্পগুচ্ছ’ হলে সকাল ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মেলা সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।
মেলায় দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৯৫টি স্টল থাকবে। দেশের নামকরা ব্র্যান্ডের পোশাকের পাশাপাশি ভারত, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও চীনের নামিদামি প্রতিষ্ঠানের পোশাক প্রদর্শনী করা হবে। এতে সব বয়সী ছেলেমেয়েদের পোশাকের পাশাপাশি থাকছে জুয়েলারি, কসমেটিকস, লেদার গুডসের সব আইটেম।
গতকাল রবিবার আইসিসিবিতে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান আইসিসিবি ও মেলার ইভেন্ট পার্টনার মিরর মিডিয়া অ্যান্ড প্রোডাকশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
সম্মেলনে জানানো হয়, ফ্যাশন ফেস্টে রুচিসম্মত পোশাকের ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে। ক্রেতারা দেশি নামিদামি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বিদেশি ব্র্যান্ডের পোশাকের তুলনা করে পছন্দের পোশাকটি সহজেই কিনতে পারবে বসুন্ধরা কনভেনশন সিটি থেকে।
মেলায় প্রতিদিন দুজন করে ফ্যাশন আইকন উপস্থিত থাকবেন। ক্রেতারা তারকাদের সঙ্গে বিভিন্ন ধরনের আলাপসহ সেলফি তুলতে পারবে। সেলিব্রিটি ক্রিকেটার, শোবিজ তারকা, নিউজ মিডিয়ার সেলিব্রিটিসহ সব ধরনের তারকা ব্যক্তিত্বকেই আমন্ত্রণ জানানো হবে।
মেলায় সেলিব্রিটিদের সঙ্গে সেলফি তুলতে সেলফি জোন ও গল্প-আড্ডার জন্য থাকছে ইন্টারঅ্যাকশন জোন। এ ছাড়া থাকছে ট্রায়াল জোন ও বিউটি টিপস কর্নার।
মেলা থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ পোশাক কিনলেই প্রিয় তারকার সঙ্গে সেলফি তোলার সুযোগ পাবে ক্রেতারা।
সম্মেলনে বসুন্ধরা গ্রুপের উপদেষ্টা (কোষাধ্যক্ষ) ময়নাল হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘ফ্যাশন মানেই শৌখিনতা ও আত্মার সন্তুষ্টি। আমি যখন কুমিল্লায় পড়াশোনা করতাম, তখন খদ্দরের কাপড় পরার একট ফ্যাশন উঠেছিল। এ ধরনের কাপড় পরতে খুব ভালো লাগত। এতে বেশি টাকাও খরচ হতো না। বর্তমানে ফ্যাশনের চিন্তাচেতনা আরো উন্নত হয়েছে। অল্প টাকা খরচ করেও মনের তৃপ্তি পাওয়া সম্ভব। সেই চিন্তাধারা থেকেই আইসিসিসিবি আন্তর্জাতিক মানের মেলার আয়োজন করতে যাচ্ছে। আশা করছি, সবার পদচারণে মেলা থাকবে প্রাণবন্ত।’
আইসিসিবির হেড অব অপারেশন এম এম জসীম উদ্দীন বলেন, ‘দেশে ফ্যাশনের ওপর যত ফেস্টিভাল হয় তার সবগুলোতেই কোনো না কোনো সীমাবদ্ধতা থাকে। আমরা সেই সীমাবদ্ধতাগুলো অতিক্রম করে একটি আন্তর্জাতিক মানের ফ্যাশন ফেস্টিভাল করতে যাচ্ছি। সিগনেচার ইভেন্ট হিসেবে প্রতিবছরই আমরা এ মেলা আয়োজন করব বলে আশা করছি।’
জসীম উদ্দীন আরো বলেন, ‘মেলাকে প্রাণবন্ত করতে ৩৫ জন সেলিব্রিটি বিভিন্ন সময় মেলায় অংশ নেবেন। শুধু বাণিজ্যিক চিন্তা নিয়ে আমরা মেলার আয়োজন করছি না। দেশের শিল্পের বিকাশেও এই মেলা অবদান রাখবে বলে আশা করি।’
সম্মেলনে জানানো হয়, দেশের ফ্যাশন ডিজাইনারদের পাশাপাশি কলকাতা থেকে প্রায় ১০ জন ফ্যাশন ডিজাইনার এ মেলায় অংশ নিতে ঢাকায় আসবেন।
সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন আইসিসিবির বিভাগীয় প্রধান (মানবসম্পদ ও প্রশাসন) আতিকুজ্জামান খান, মিরর মিডিয়া অ্যান্ড প্রোডাকশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহজাহান ভূঁইয়া রাজু প্রমুখ। মেলার মিডিয়া পার্টনার হিসেবে থাকছে কালের কণ্ঠ, বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম, ডেইলি সান ও আরটিভি।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.