Pre-loader logo

শার্শায় বসুন্ধরা সিমেন্টের রাজমিস্ত্রি কর্মশালা

শার্শায় বসুন্ধরা সিমেন্টের রাজমিস্ত্রি কর্মশালা

নির্মাণ শিল্পে নির্মাণ শিল্পীদের দক্ষতা ও সচেতনতাকে এগিয়ে নিতে ‘শৈল্পিক নির্মাণ, রাজমিস্ত্রিদের অবদান’ শীর্ষক এক কর্মশালার আয়োজন করেছে দেশের শীর্ষ স্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা সিমেন্ট।
যশোরের শার্শা উপজেলার নাভারণে নির্মাণ শ্রমিকদের নিয়ে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় যশোরের স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মির্জা মো. ইফতেখার আলী প্রধান অতিথি এবং বসুন্ধরা সিমেন্টের সাইথ উইং এজিএম জিয়ারুল ইসলাম বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন।
আজ সোমবার নাভারণ হক কমিউনিটি সেন্টারে দিনব্যাপী এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালায় নির্মাণ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান এবং বসুন্ধরা সিমেন্টের উৎপাদন, গুণগত মান এবং ভালো ভবন ও স্থাপনা নির্মাণে এ সিমেন্ট ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে মাল্টিমিডিয়া প্রদর্শন করা হয়।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে যশোরের স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মির্জা মো. ইফতেখার আলী বলেন, একটি ভবন নির্মাণে সিমেন্ট ছাড়াও আরো অনেক বিষয় বিবেচনায় নিতে হবে। সব সময় টাটকা সিমেন্ট ব্যবহার করতে হবে। সিমেন্ট মিহি কি না সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। সব বিবেচনায় বসুন্ধরা সিমেন্ট মিহি বলেই আমরা জানি। তা ছাড়া ভবন নির্মাণের সময় সিমেন্ট-বালু পরিমাণ মতো মিক্সিং করতে হবে। ভালোভাবে পানি দিতে হবে। ঠিকমতো কিউরিং করতে হবে।
বসুন্ধরা সিমেন্টের সাইথ উইং এজিএম জিয়ারুল ইসলাম বলেন, বাজারে প্রচলিত অন্যান্য সিমেন্টের তুলনায় বসুন্ধরা সিমেন্ট অধিকতর মিহি এবং উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন। এ সিমেন্ট সালফেট ও ক্লোরাইড প্রতিরোধী হওয়ায় দেয়ালে লবণাক্ততা রোধ ও ক্ষতিকারক রাসায়নিক বিক্রিয়া প্রতিরোধক। ফাটল প্রতিরোধ হওয়ায় এ সিমেন্ট কংক্রিটের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে। এ ছাড়া এ সিমেন্ট পরিবেশবান্ধব।
তিনি আরো বলেন, ধারাবাহিক গুণগত মানের জন্য বর্তমানে দেশের সবচেয়ে আইকনিক প্রকল্প পদ্মা সেতু নির্মাণ, পদ্মা সেতু নদী শাসন, পদ্মা সেতুর অ্যাপ্রোচ রোড, মেট্রো রেল, ফাস্ট ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, রুপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ, মাতারবাড়ি বিদ্যুৎ, পদ্মা সেতুর রেল সংযোগ, পায়রা সেতু, কালনা সেতু, সাসেক রোড, ভুলতা ফ্লাইওভার, কালশী ফ্লাইওভার, রুপসা রেল সেতু, রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্পের মত বড় বড় প্রকল্প ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় বসুন্ধরা সিমেন্টে নির্মিত হয়েছে এবং হচ্ছে।
বসুন্ধরা সিমেন্টের স্থানীয় পরিবেশক ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেনের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য দেন শার্শা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের উপজেলা প্রকৌশলী মো. রশিদুজ্জামান, ঝিকরগাছা উপজেলা প্রকৌশলী শ্যামল কুমার বসু, বসুন্ধরা সিমেন্টের খুলনা ডিভিশনের ডিভিশনাল সেলস ইনচার্জ, যশোর এরিয়া সেলস ম্যানেজার মো. রুহুল আমিন, বসুন্ধরা সিমেন্টের টেকনিক্যাল সাপোর্ট ইজ্ঞিনিয়ার আবুল হাসানসহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।
কর্মশালায় ৬০ জন নির্মাণ শ্রমিক অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালাটি এক পর্যায়ে মিলন মেলায় পরিণত হয়। পরে উপস্থিতিদের মধ্যে বিভিন্ন পুরস্কার ও ১০ জন নির্মাণ শ্রমিকদের র‌্যাফেল ড্রর পুরস্কার বিতরণ করেন প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.