Pre-loader logo

শেষ আটে শেখ রাসেল

শেষ আটে শেখ রাসেল

ক্রীড়া প্রতিবেদক : দুই বিদেশির গোলে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র শুভ সূচনা করেছে নতুন মৌসুমে। দুই রাফায়েলের গোলে তারা ২-০ গোলে মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়ে পৌঁছে গেছে ফেডারেশন কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে। এই জয়ে গ্রুপসঙ্গী ঢাকা আবাহনীর শেষ আটে খেলাও চূড়ান্ত হয়ে গেছে। আর দুই ম্যাচ হেরে মুক্তিযোদ্ধা ছিটকে গেছে টুর্নামেন্ট থেকে। দিনের অন্য ম্যাচে ব্রাদার্স দু-দুবার এগিয়ে গিয়েও ওতাবেক ভালিজনভের সঙ্গে পেরে ওঠেননি। এই উজবেক ফরোয়ার্ডের হ্যাটট্রিকে বিজেএমসি ৩-২ গোলে হারিয়েছে তাদের।
জয়ে শুরু করাটা দারুণ ব্যাপার রাসেলের জন্য। তবে দলের কোচ সাইফুল বারী টিটু খুব সন্তুষ্ট হতে পারেননি, ‘যেভাবে ম্যাচ খেলার কথা সেটা পারেনি খেলোয়াড়রা। অ্যাটাকিং থার্ডে দ্রুত খেলে রক্ষণ ভাঙার কাজটা ঠিকঠাক হয়নি। ওদের একটি ভুলের সুযোগ নিয়ে আমরা প্রথম গোল বের করেছি। তবে রক্ষণভাগে আমাদের খেলোয়াড়রা খুব ভালো করেছে।’ প্রথম ম্যাচ বলে হয়তো পুরো মানিয়ে নিতে পারেনি শেখ রাসেল। তবে শুরুতেই খালেকুরজামানের গোলটি হয়ে গেলে খেলার ধারা আবার অন্য রকম হয়ে যেত। দাপটের সঙ্গে খেলতে পারত ২০১২ সালের ফেডারেশন কাপ চ্যাম্পিয়নরা। বক্সে একদম ফাঁকায় বলটি পেয়েও তিনি ফিনিশ করতে পারেননি, পায়ে নিয়ে তালগোল পাকিয়ে ফেলেন। এরপর ২৪ মিনিটে মুক্তিযোদ্ধাও সুযোগ পেয়েছিল। জাপানি মিডফিল্ডার ইয়োসুকে কাতোর শটে গোলরক্ষক আশরাফুল রানা দুর্দান্ত সেভ করে ম্যাচে রাখেন রাসেলকে।
তারা গোলের দেখা পায় ৭০ মিনিটে। কাউন্টারে ব্রাজিলিয়ান অ্যালেক্স রাফায়েল চমৎকার এক লং বল বাড়ান। মুক্তিযোদ্ধা ডিফেন্ডার সেটি ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হলে নাইজেরিয়ান রাফায়েল ওডোইন লক্ষ্য ভেদ করেন। এই গোল তাদের আত্মবিশ্বাসী করে তোলে। সুবাদে ইনজুরি টাইমে আলেক্স রাফায়েলের আরেক গোলে শেষ পর্যন্ত সহজ জয় পেয়ে যায় শেখ রাসেল। তবে কোচ সাইফুল বারী টিটু পারফরম্যান্সে আরো উন্নতি করার তাগিদ দিচ্ছেন, ‘এর চেয়েও ভালো খেলতে হবে আমাদের। সামনে আরো কঠিন ম্যাচ আসছে, বল পায়ে রেখে ম্যাচ নিয়ন্ত্রণ করে জিততে হবে।’
দ্বিতীয় ম্যাচে চমৎকার গোল প্রদর্শনী করেছেন বিজেএমসির ওতাবেক ভালিজনভ। ব্রাদার্সের দুই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডের সঙ্গে একা লড়েছেন এই উজবেক ফরোয়ার্ড। ২৬ মিনিটে ব্রাজিলিয়ান এভারটনের স্কয়ার পাসে লিওনার্দো লিমা লক্ষ্য ভেদ করে এগিয়ে নেন ব্রাদার্সকে। প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে সেই গোল শোধ করে বিজেএমসিকে ফেরান ওতাবেক। তাঁর ফ্রি-কিকটি ওয়ালে লেগে পৌঁছে যায় জালে। ৫১ মিনিটে এভারটনের গোলে আবার লিড নেয় ব্রাদার্স, এবার স্বদেশি লিমার অ্যাসিস্ট। দুই মিনিট বাদে ব্রাদার্স বিপদে পড়ে খান মোহাম্মদ তারা লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়লে। গোলের বিপদ ঠেকাতে তিনি ফাউল করেছিলেন স্যামসন ইলিয়াসুকে। কিন্তু এর পরও গোল থেকে রেহাই পায়নি। বক্সের বাইরে সেই ফ্রি-কিক থেকেই এই বিদেশি ফরোয়ার্ড গোলরক্ষক বিপ্লবকে ফাঁকি দিয়ে বল জড়িয়ে দিয়েছেন জালে। সুবাদে ম্যাচ আবার সমতায় এবং ৫৮ মিনিটে ওতাবেক বক্সে ঢুকে আরেকটি চমৎকার গোল করে নিজের হ্যাটট্রিক পূরণ করে বিজেএমসিকে দিয়েছেন প্রথম জয়ের স্বাদ। এটি টুর্নামেন্টের প্রথম হ্যাটট্রিক। আগের ম্যাচে বিজেএমসি হেরেছিল সাইফ স্পোর্টিংয়ের কাছে। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে কনসার্টের কারণে আজ থেকে খেলা বন্ধ থাকবে দুই দিন।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.