Pre-loader logo

সময়মতো শুরু হবে চিকিৎসাসেবা

সময়মতো শুরু হবে চিকিৎসাসেবা

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় দেশে সবচেয়ে বড় অস্থায়ী হাসপাতাল স্থাপন করা হচ্ছে রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি)। হাসপাতালটি স্থাপনের মূল কাজ প্রায় শেষ। এরই মধ্যে বসানো হয়েছে ৭৫০টি বেড। এ ছাড়া এক্সপো জোনে ফ্লোরম্যাট বসানোসহ রোগীর বেড, ডাক্তার, নার্স ও সহযোগী কর্মীদের কক্ষগুলোও প্রস্তুত। এক্সপো জোন ও তিনটি হলরুমে কভিড-১৯ রোগের চিকিৎসায় দেশের সবচেয়ে বড় এই হাসপাতালে দুই হাজার ১৩ বেডের আইসোলেশন সেন্টার এবং ৭১ বেডের আইসিইউ ইউনিট থাকছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই হাসপাতাল স্থাপনের কাজ শেষ করে চিকিৎসাসেবা শুরু করা হবে। এর জন্য দিন-রাত মিলিয়ে চলছে নির্মাণকাজ।
গতকাল শুক্রবার আইসিসিবিতে হাসপাতাল স্থাপনের কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করতে আসেন স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. ওসমান সরোয়ার। এ সময় তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘হাসপাতাল স্থাপনের মূল কাজ মোটামুটি শেষ। কিছু আনুষঙ্গিক কাজ এখনো শেষ হয়নি। সে কাজগুলো চলছে। এ কাজ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে একটা হাসপাতাল চালুর জন্য অন্য যে সুবিধাগুলো রয়েছে সেগুলোও দ্রুত শেষ করা হবে। আশা করছি দ্রুতই চিকিৎসা দেওয়ার জন্য হাসপাতালটি প্রস্তুত হয়ে যাবে।’
গতকাল সরেজমিনে দেখা গেছে, কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় ব্যস্ত সময় পার করছেন শ্রমিকরা। কেউ বেড প্রস্তুত করছেন তো অন্যরা ডাক্তারের জন্য কক্ষ প্রস্তুত করছেন। হাসপাতালের বাইরে পাওয়ার স্টেশন এবং টয়লেট তৈরির কাজও দ্রুত এগিয়ে চলেছে। রোগীদের সুবিধার জন্য তৈরি হচ্ছে দেড় শ মানসম্মত টয়লেট। আর এরই মধ্যে দুটি ব্লকে ৭৫০টি বেড বসানো হয়ে গেছে।
গত ১২ এপ্রিল ঘোষণা করা হয়েছিল, ১৫ দিনের মধ্যে এই হাসপাতাল চিকিৎসা কার্যক্রমে যাবে। সেই লক্ষ্য নিয়েই কাজ শুরু করে সরকারের স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর ও বসুন্ধরা গ্রুপ।
আইসিসিবির প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা এম এম জসীম উদ্দিন বলেন, ‘লক্ষ্য সামনে রেখে কাজ এগিয়ে চলছে। আগামী ২৭-২৮ এপ্রিলের মধ্যে রোগীর সেবার জন্য এটি প্রস্তুত হয়ে যাবে বলে আশা করছি। আমরা মন্ত্রণালয় থেকে জেনেছি, তাদের সিদ্ধান্ত হলো হাসপাতালটির শতভাগ কাজ শেষ হলেই সেবার জন্য খুলে দেওয়া হবে। চিকিৎসা চলাকালীন কোনো নির্মাণকাজ করা যাবে না।’
করোনাভাইরাস প্রার্দুভাবে দেশের বিপদে এগিয়ে আসে বসুন্ধরা গ্রুপ। প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ১০ কোটি টাকা অনুদান দেওয়ার পাশাপাশি সরকারকে আইসিসিবিতে পাঁচ হাজার শয্যার হাসপাতাল স্থাপনের প্রস্তাব দেয় দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা। এর পর প্রধানমন্ত্রীর সম্মতিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও সেনাবাহিনীর একটি দল আইসিসিবি পরিদর্শন করে। পরে এখানে অস্থায়ী হাসপাতাল স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। আইসিসিবির সুবিশাল চারটি কনভেনশন হল ও একটি এক্সপো জোনে দেশের অন্যতম বৃহৎ হাসপাতাল স্থাপনের কাজ বাস্তবায়ন করছে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর। যত দিন এই মহামারি থাকবে এবং সরকারের যত দিন ব্যবহারের প্রয়োজন হবে তত দিন আইসিসিবি ব্যবহারের জন্য দেওয়া হয়েছে।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.