Pre-loader logo

‘সায়েম সোবহান আনভীরের নেতৃত্বে বাংলাদেশে জুয়েলারি শিল্পে বিপ্লব ঘটাবে বাজুস’ – দৈনিক বাংলাদেশের আলো

‘সায়েম সোবহান আনভীরের নেতৃত্বে বাংলাদেশে জুয়েলারি শিল্পে বিপ্লব ঘটাবে বাজুস’ – দৈনিক বাংলাদেশের আলো

“আমাদের নতুন সভাপতি সায়েম সোবহান আনভীরের নেতৃত্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বর্ণ নীতিমালা বাস্তবায়ন করবে বাজুস। যার মধ্য দিয়ে আমাদের শত বছরের কাঙ্ক্ষিত জুয়েলারি শিল্প উন্নয়নের যে দাবি ছিলো সেটি পরিপূর্ণ হবে। সায়েম সোবহান আনভীরের নেতৃত্বে বাজুস বাংলাদেশের জুয়েলারি শিল্পের বিপ্লব ঘটাবে। ফিরে পাবে জুয়েলারি শিল্পের হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্য।”

এমনটাই মন্তব্য করেন বাংলাদেশ জুয়েলারি অ্যাসোসিয়েশনের (বাজুস) সাবেক সভাপতি ও স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ডিস্ট্রিক মনিটরিংয়ের  চেয়ারম্যান ডা. দিলীপ কুমার রায়। সোমবার দুপুরে বরগুনা পৌর শহরের বন্দর ক্লাব মিলনায়তনে বাংলাদেশ জুয়েলারি অ্যাসোসিয়েশন বরগুনা জেলা শাখার আয়োজনে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মতবিনিময় সভার শুরুতে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন জেলার নেতৃবৃন্দরা। এরপর কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে শুভেচ্ছা স্মারক প্রদান করা হয়।
মতবিনিময় সভায় দিলীপ কুমার রায় আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর স্বর্ণ নীতিমালা বাস্তবায়নে কাজ করছে বাজুস। এই স্বর্ণ নীতিমালার শতভাগ বাস্তবায়ন করতে আগামী দিনে আমাদের এদেশে শিল্পায়ন গড়ে তুলতে হবে, আমাদের জুয়েলারি ফ্যাক্টরি করতে হবে, অর্নামেন্টস ফ্যাক্টরি করতে হবে। আমাদের নতুন সভাপতির নেতৃত্বে এই সকল কাজ বাস্তবায়ন করে আমরা এদেশে জুয়েলারি শিল্পের বিপ্লব ঘটাবো। এসময় তিনি জুয়েলারি শিল্পের সাথে জড়িত কারিগরদের উন্নয়নে কাজ করার বিষয়েও গুরুত্বারোপ করেন।

মতবিনিময় সভায় বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ল এন্ড মেম্বারশিপ এর সহ সম্পাদক ও ভাইস চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমান বলেন, বাংলাদেশে স্বর্ণখাতে প্রচুর সম্ভাবনা থাকলেও এই খাতটি এতদিন ঝিমিয়ে ছিলো। বাজুসের নতুন সভাপতি বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরের নেতৃত্বে স্বর্ণ ব্যবসা আলোর মুখ দেখেছে। তার আহ্বানে সারা দেশের স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা এক কাতারে শামিল হচ্ছে। ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার বিকল্প নেই।

বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ডিস্ট্রিক মনিটরিং এর সহ সম্পাদক ও সদস্য সচিব মো. জয়নাল আবেদীন খোকন বলেন, আগামী দিনে সকলে একত্রিত হয়ে ব্যবসা করতে হবে। কোন অবৈধ ব্যবসায়ীর ব্যবসা করার সুযোগ নেই। তাই সকল স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে বাজুসের অন্তর্ভুক্ত হতে হবে। স্বর্ণ ক্রয়-বিক্রয়ের সময় গ্রাহকের জাতীয় পরিচয়পত্র, ছবি এবং মুঠোফোন নম্বর মেমোতে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

বাজুস বরগুনা জেলা শাখার আহ্বায়ক রনজিত কর্মকারের সভাপতিত্বে এসময় বক্তব্য রাখেন বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ল এন্ড মেম্বারশিপ এর সহ সম্পাদক ও ভাইস চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমান, বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ডিস্ট্রিক মনিটরিং এর সহ সম্পাদক ও সদস্য সচিব মো. জয়নাল আবেদীন খোকন, বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ল এন্ড মেম্বারশিপ এর কার্যনির্বাহী সদস্য ও সদস্য সচিব মো. রিপনুল হাসান, বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ডিস্ট্রিক মনিটরিং এর কার্যনির্বাহী সদস্য পবিত্র চন্দ্র ঘোষ, বাজুস বরগুনা জেলা শাখার সভাপতি উত্তম কর্মকার, সাবেক সভাপতি সন্তোষ কর্মকার, দিলিপ কর্মকার, গোপাল কর্মকার, জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সমরেশ কর্মকার প্রমুখ। জেলা কমিটির নেতৃবৃন্দ, জুয়েলার্স ব্যবসায়ীদের জন্য কল্যাণ তহবিল গঠন, ইন্সুরেন্স চালু এবং স্বর্ণ ব্যাংক করার দাবি জানান।

 

Source : দৈনিক বাংলাদেশের আলো

Copyright © 2022 Sayem Sobhan Anvir.
All Rights Reserved.