Pre-loader logo

সিএসই’র কৌশলগত বিনিয়োগকারী হলো বসুন্ধরার এবিজি – ভোরের পাতা

সিএসই’র কৌশলগত বিনিয়োগকারী হলো বসুন্ধরার এবিজি – ভোরের পাতা
কৌশলগত বিনিয়োগকারী হিসেবে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতিষ্ঠান এবিজি লিমিটেড।
রবিবার (২০ নভেম্বর) সন্ধ্যায় (২০ নভেম্বর) রেডিসন ব্লু চট্টগ্রাম বে ভিউ হোটেলে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান হয়।
সিএসইর পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মো. গোলাম ফারুক এবং এবিজি লিমিটেডের পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর চুক্তিতে সই করেন।
সিএসইর ২৫ শতাংশ শেয়ার কেনার মধ্য দিয়ে এবিজি লিমিটেড পুঁজিবাজারের মালিকানায় কৌশলগত বিনিয়োগকারী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হল। এখন থেকে কৌশলগত বিনিয়োগকারী হিসেবে এবিজি লিমিটেড কার্যক্রম পরিচালনা করবে।
দেশের পুঁজিবাজারে সার্বিক উন্নয়ন ও কার্যকরী সমৃদ্ধি আনতে এবিজি লিমিটেড বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া শুরু করেছে। চুক্তির ফলে এবিজি লিমিটেড পুঁজিবাজারকে আরও সমৃদ্ধ ও শক্তিশালী করতে যুগান্তকারী ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন—চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী, শিক্ষা উপ-মন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়া-উল-ইসলাম এবং বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান। সভাপতিত্ব করেন সিএসইর চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহিম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিএসইর পরিচালক মেজর (অব.) মো. এমদাদুল ইসলাম।
অনুষ্ঠানে ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী বলেন, বসুন্ধরা যে কাজটি হাতে নিয়েছে, সেই কমোডিটি এক্সচেঞ্জের যাত্রা চট্টগ্রাম থেকেই শুরু হবে। এটি খুব শিগগিরই সফলতার মুখ দেখবে।
সালমান এফ রহমান বলেন, দেশের পুঁজিবাজারে প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অবদান অনেক কম। এ ধরনের বিনিয়োগের পরিমাণ আরও বাড়ানো দরকার। এটি বাজারের বড় দুর্বলতা। পুঁজিবাজারে ব্যক্তি পর্যায়ের বিনিয়োগকারী বেশি। এখানে প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী আরও বাড়ানো উচিৎ। এছাড়া, বাজার মূলধন ও জিডিপির মধ্যে সামঞ্জস্য থাকা দরকার। বসুন্ধরা গ্রুপ ঝুঁকি নিয়ে পুঁজিবাজারে এসেছে। যারা এখনো আসেনি, তারা যেন আসে। কারণ, বসুন্ধরা সকল কাজে সফলতা পেয়েছে।
বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান বলেন, বিদেশি বিনিয়োগের মাধ্যমে নয়, দেশের বড় ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগের মাধ্যমে দেশ সাবলম্বী হবে। বড় ১০০ কোম্পানিকে পুঁজিবাজারে আসতে হবে। যদি বড় বড় কোম্পানির নাম বলতে বলা হয়, তাহলে কোনো দ্বিধা ছাড়াই তাদের নাম বলা যাবে, যারা খুব ভালো ব্যবসা করেছে। কিন্তু, তাদের দেশের প্রতি তেমন মায়া দেখা যায় না। ফলে, দেশে ভালো ব্যবসা করে বিদেশে অর্থ জমানোর বিষয়ে তাদের আগ্রহ বেশি। কিন্তু, সেটা কখনোই উচিত নয়। বরং বসুন্ধরা গ্রুপ যেমন দেশ ও দেশের জনগণের জন্য কাজ করে, ঠিক তেমনি বাকি প্রতিষ্ঠানগুলোকে দেশের জন্য কাজ করতে হবে।

Copyright © 2022 Sayem Sobhan Anvir.
All Rights Reserved.