Pre-loader logo

স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলল বসুন্ধরা শপিং মল

স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলল বসুন্ধরা শপিং মল

করোনাভাইরাসের কারণে টানা আড়াই মাসের বেশি সময় বন্ধ থাকার পর গতকাল খুলেছে দেশের অন্যতম বৃহৎ বিপণিবিতান বসুন্ধরা সিটি শপিং মল। সকাল ১০টায় শপিং মলের সব প্রবেশপথ খুলে দেওয়ার পরই আসতে শুরু করেন ক্রেতারা। মলে ঢুকতে ক্রেতাদের মানতে হয়েছে স্বাস্থ্যবিধি। তাদের ঢুকতে হয়েছে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে লাইন ধরে। প্রবেশ পথে ছিল বাধ্যতামূলক হাত ধোয়ার ব্যবস্থা। নিরাপত্তাকর্মীরা এ সময় প্রত্যেক ক্রেতার শরীরের তাপমাত্রা মেপেছেন। সরেজমিন দেখা গেছে, কোনো ক্রেতাকেই মাস্ক ছাড়া শপিং মলে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। প্রবেশের আগে সবাইকে হাত ধুতে বাধ্য করা হয়েছে। শপিং মলের সামনে বসানো হয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারসহ ওয়াশিং বেসিন। প্রবেশপথে বসানো হয়েছে ডিজইনফেকসনাল টানেল।

প্রথম দিনে অন্য দোকানগুলোতে খুব একটা ক্রেতা না থাকলেও ভিড় দেখা গেছে মোবাইল ফোন বিক্রির ও সার্ভিসিংয়ের দোকানে। সব দোকানেই নিশ্চিত করা হয়েছে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি। দীর্ঘদিন পরে হলেও শপিং মল খুলে যাওয়ায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন ব্যবসায়ীরা। ক্রেতারাও স্বাস্থ্যবিধি মানার বিভিন্ন ব্যবস্থা থাকায় স্বস্তি প্রকাশ করেন।

শপিং মলের ইনচার্জ ও ঊর্ধ্বতন নির্বাহী পরিচালক (হিসাব ও অর্থ) শেখ আবদুুল আলীম বলেন, শুক্রবার থেকে শপিং মলটি খুলে দেওয়া হয়েছে। এখানে আসা সবার স্বাস্থ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। হ্যান্ড স্যানিটাইজারসহ ওয়াশিং বেসিন ও ডিজইনফেকসনাল টানেল বসানো হয়েছে। প্রবেশের আগে সবার শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপ করা হচ্ছে। কারণ দেশের মানুষের কাছে এটা খুবই জনপ্রিয় একটি শপিং মল। এখান থেকে গ্রাহকরা আস্থা ও স্বাচ্ছন্দ্যের সঙ্গে কেনাকাটা করতে পারেন। আমরা অনুরোধ করব, যেন সবাই স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে মার্কেটে আসেন। যেমন মাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস পরে আসেন। বসুন্ধরা শপিং মলের মোবাইল হ্যান্ডসেট শপ সুমাশটেকের কর্ণধার আবু সাঈদ পিয়াস বলেন, শপিং মল খুলে দেওয়ায় আমাদের স্বস্তি এসেছে। এতদিন ব্যবসায়িক কার্যক্রম একেবারেই বন্ধ ছিল। আশা করছি, এখন আবার সবকিছু স্বাভাবিক হবে। এ সিদ্ধান্তের জন্য আমরা বসুন্ধরা গ্রুপ ও শপিং মলের কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাই। শপিং মলে আসা মাহবুবুর রহমান নামে এক দর্শনার্থী বলেন, অনেকদিন কোনো শপিং মলে যাওয়া হয়নি। কিন্তু বাসাবাড়ির অনেক জিনিসপত্র কিনতেই হয়। তাই সবসময়ই আমরা এ শপিং মল থেকে কেনাকাটা করি। ঈদের আগে কিছু শপিং মল খুললেও সেগুলো ছোট হওয়ায় যাইনি, কারণ সেখানে অল্পতেই ভিড় হয়ে যায়। এ শপিং মল খুবই বড়, তাই শারীরিক দূরত্ব মেনে শপিং করা যাবে আশা করি। স্বাস্থ্যবিধি মানার জন্যও পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। মার্কেটে প্রবেশের আগে হাত ধোয়ার জন্য বেসিন বসানো হয়েছে। সেখানে স্যানিটাইজারও আছে। আশা রাখছি, নিরাপদেই শপিং করতে পারব।

Copyright © 2020 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.